menu

বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

৬৭ ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা

ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের চিহ্নিত করা হচ্ছে

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অফিসে হামলা, ভাঙচুর ও রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় আন্দোলনকারী অর্ধশত ডাক্তারের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে গত মঙ্গলবার রাতে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় আন্দোলনকারী বহিরাগত ডাক্তার ও ভার্সিটিতে তান্ডব চালানোর ঘটনায় চিহ্নিত ১৬-১৭ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও ৪০ থেকে ৫০ জন রয়েছে। হামলার সময়ের ভিডিও ফুটেজ ও ছবি দেখে আসামিদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার করা হবে।

শাহবাগ থানার ওসি জানান, মামলার তদন্ত কাজ শুরু হয়ে গেছে। নির্দেশ ফেলে যে কোন মুহূর্তে আসামিদের গ্রেফতার করা হবে। অভিযোগ রয়েছে, মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন সিনিয়র ডাক্তার ও শিক্ষক হামলার সময় বহিরাগতদের সঙ্গে ছিলেন। তারা হামলার পর গতকাল উল্টো সুর নেয়ার চেষ্টা করেছেন। আজ সিন্ডিকেট বৈঠকে স্থগিত করা মৌখিক পরীক্ষা নেয়াসহ পুরো বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। তবে মৌখিক পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে ভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। সরকারের উচ্চ পর্যায়ে মেধার ভিত্তিতে ডাক্তার নিয়োগ দেয়ার ব্যাপারে অনড় রয়েছে। মামলার আসামিরা হলেন, ডা. বিজয় কুমার পাল, ডা. মো. আহসান হাবীব হেলাল (নিউরোলজি বিভাগ) ডা. মো. আরিফুল ইসলাম জোয়ারদার টিটু (কার্ডিওলজি বিভাগ), ডা. বশির আহম্মেদ জয় (কার্ডিওলজি বিভাগ), ডা. মো. ফারুক (ইউরোলজি বিভাগ), ডা. মো. তৌহিদুজ্জামান (এনআইসি ভিডি), ডা. মিরজন (ই এন টি বিভাগ), ডা. মো. জাকির (অ্যানেসথেসিয়া বিভাগ), ডা. মো. কাউছার (মেডিসিন বিভাগ), ডা. মো. এনায়েত উল্লাহ তুষার (অ্যানেসথেসিয়া বিভাগ), ডা. প্রাণ (চর্ম ও যৌন বিভাগ), ডা. সুভাস কান্তি দে (নিউরোলজি বিভাগ), ডা. দিপংকর, (অ্যানেসথেসিয়া বিভাগ), ডা. মেহেদী, (অ্যানেসথেসিয়া বিভাগ), ডা. রাফিউল বারী (পেডো ডন্টিক্স বিভাগ ডেন্টাল অনুষদ), ডা. বিদ্যুৎ চন্দ্র দেবনাথ (আর এস, সার্জারি বিভাগ) ও ডা. সজিবসহ (অ্যানেসথেসিয়া বিভাগ) অজ্ঞাতনামা ৪০/৫০ জন। মামলার এজাহারে বলা হয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিকেল অফিসার নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। গত কয়েকদিন যাবৎ বহিরাগত কিছু ডাক্তার (মেডিকেল অফিসার হিসেবে নিয়োগ প্রার্থী) লিখিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে প্রতিদিন ক্যাম্পাসে এসে নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধের জন্য মিছিল মিটিং করে এবং প্রশাসনকে ভয়ভীতি দেখায়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১১ জুন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় লিখিত পরীক্ষায় কৃতকার্যদের মধ্যে থেকে ৩০ জনের মৌখিক পরীক্ষা চলাকালে উপরোল্লেখিত আসামিরাসহ অজ্ঞাতনামা আসামিরা বে-আইনিভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক ভবনের গেইটে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পুলিশ ও আনসার সদস্যদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে তাদের সরকারি কর্তব্য কাজে বাধা প্রদান করে এবং কিলঘুষি মেরে জোরপূর্বক প্রশাসনিক ভবনের ২য় তলায় ভিসি অফিস কক্ষে অনধিকার প্রবেশ করে আক্রমণ চালায়। তারা ভিসি অফিসের গ্লাস ও নেইম প্লেটসহ অন্য আসবাবপত্র ভাঙচুর করে এবং অফিসের চেয়ার তুলে নিয়োগ বোর্ডের সভাপতিকে হত্যার উদ্দেশ্যে নিক্ষেপ করে। অফিসের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে অফিস তছনছ করে ক্ষতিসাধন করে এবং দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি করে। নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করার জন্য ভিসিকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করে। ভিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ ও রোগীদের সেবার স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ প্রক্রিয়ার মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত করেন।