menu

হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নিবিড় পর্যবেক্ষণে সম্রাট

চিকিৎসক বললেন অবস্থা স্থিতিশীল, মেডিকেল বোর্ড গঠন

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , বুধবার, ০৯ অক্টোবর ২০১৯

কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন যুবলীগ দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। গতকাল অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়। এরপর তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউতে নেয়া হলে করোনারী কেয়ার ইউনিট (সিসিইউতে) ভর্তি করা হয়। সেখানে সম্রাটকে ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট। তবে তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হবে কি না, তা আজ সকালে মিটিং শেষে জানানো হবে। তার অবস্থা ভালো এবং স্থিতিশীল।

গতকাল বেলা তিনটায় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. আফজালুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন তার (সম্রাটের) সুচিকিৎসার জন্য সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। বেশকিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। জরুরি কিছু পরীক্ষার রিপোর্ট আমরা পেয়েছি, সেগুলোর রিপোর্ট ভালো। তবুও তাকে ২৪ ঘণ্টার জন্য পর্যবেক্ষণে রাখতে হচ্ছে। কারণ যেকোন হৃদরোগের রোগী আসলে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

সম্রাটকে ছাড়পত্র কখন দেয়া হতে পারে জানতে চাইলে ডা. আফজালুর বলেন, তার চিকিৎসার কোন অবহেলা করা হচ্ছে না। আজকে ছুটির দিন সত্ত্বেও চিকিৎসকরা সময় দিচ্ছেন। মেডিকেল বোর্ডে সব কিছু বিবেচনায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, তার চিকিৎসা চলবে নাকি ডিসচার্জ করা হবে।

কেরানীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সূর্যমুখী সেলে থাকা অবস্থায় সকাল ৭টার দিকে সম্রাটের প্রেসার খুব লো হয়ে পড়ে। পরে মাইক্রোবাসযোগে কারারক্ষিদের প্রহরায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নতুন ভবনের তিন তলায় করোনারি কেয়ার ইউনিট-সিসিইউতে রেফার করেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা রোগীর সঙ্গে কথা বলেন এবং প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের সিসিইউতে নেয়া হয়।

এদিকে সম্রাটকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার দাবি জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। তারা বলছেন, সম্রাটের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন। তার হৃদযন্ত্রে পেসমেকার বসানো প্রয়োজন। সকালে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে (এনআইসিভিডি) চিকিৎসাধীন সম্রাটকে দেখতে এসে তারা সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

সম্রাটের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলোর প্রধান আইনজীবী হিসেবে আদালতে লড়বেন আওয়ামী যুবলীগের আইন সম্পাদক ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আফরোজা শাহনাজ পারভীন হীরা। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আমাদের ক্লায়েন্ট ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে দেখতে এসেছিলাম। কিন্তু দেখতে দেয়া হয়নি। তিনি বলেন, গত ১০ সেপ্টেম্বর তার হার্টে পেসমেকার লাগানোর জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে ১৪ সেপ্টেম্বর একটি অনুষ্ঠান থাকায় তিনি যেতে পারেননি।

এই আইনজীবী আরও বলেন, গত ৭ অক্টোবর আমরা তার সঙ্গে দেখা করতে জেলগেটে অনেক প্রসিডিউর মেইনটেইন করে তার সঙ্গে দেখা করি। আমরা দেখতে পেয়েছি, তার শারীরিক কন্ডিশন ভীষণ খারাপ ছিল। দূর থেকেই তিনি বলছিলেন, তার বুকে ব্যথা। তিনি খুবই অসুস্থ। হীরা বলেন, তিনি (সম্রাট) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দাবি করেছেন, তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যেন দেশের বাইরে পাঠানো হয়। তিনি সবসময় দেশের বাইরে চিকিৎসা নিয়েছেন। আমরাও দাবি করছি, তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নেয়া হোক।