menu

রোজ গার্ডেন হবে ঢাকা মহানগরের ইতিহাসের জাদুঘর

  • ঢাকা , শুক্রবার, ১২ অক্টোবর ২০১৮
image

গতকাল এশিয়াটিক সোসাইটির ‘ঐতিহ্য জাদুঘর’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে জাদুঘর পরিদর্শন করেন অতিথিরা-সংবাদ

পুরোনো ঢাকার ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনকে ঢাকা মহানগরের ইতিহাসে জাদুঘর হিসেবে নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। গতকাল এশিয়াটিক সোসাইটির ‘ঐতিহ্য জাদুঘর’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা জানান। মন্ত্রী বলেন, রোজ গার্ডেনের মতো বাংলাদেশের প্রতিটি ঐতিহাসিক স্থান আমরা সংরক্ষণের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। তবে আর্থিক সংকট এবং আইনি জটিলতা প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি প্রাঙ্গণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সোসাইটির সভাপতি মাহফুজা খানম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ড. সাব্বীর আহমেদ, সোসাইটির সম্পাদক আবদুর রহিম এবং ঐতিহাসিক জাদুঘরের প্রধান সমন্বয়কারী প্রফেসর শরীফ উদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সোসাইটির সদস্যসহ জাদুঘরে নিদর্শন প্রদানকারী পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আসাদুজ্জামান নূর বলেনÑ যদি আতিথেয়তা পেতে হয়, যদি বড় মনের মানুষ পেতে হয় তাহলে পুরোনো ঢাকার তুলনা নেই। পুরোনো ঢাকার মানুষ উদ্দেশে ছাড়াই মানুষকে কাছে টেনে নেয়, আতিথেয়তা দেয়। তিনি বলেন, আমরা ঢাকাসহ ঢাকার বাইরে প্রাচীন ঐতিহ্য রক্ষার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু দুটি কারণে কাজটি অনেক কঠিন হয়ে গেছে। প্রথমত আমাদের অর্থের সংকট, দ্বিতীয়ত মানুষের সচেতনতার অভাব। মন্ত্রী বলেন, পুরোনো ঢাকার জায়গা অনেকে দখল করেন। সেই জায়গা দখলমুক্ত করতে গিয়ে আমাদের এতো মামলা লড়তে হয় যে আমরা হাঁপিয়ে উঠি। এই লালবাগ কেল্লার একাংশ দখল হয়ে যায়, রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়ি, সচীনদেব বর্মণের বাড়ি, সুচিত্রা সেনের বাড়ি, ড. নীহার রঞ্জন রায়সহ আরও অনেকের বাড়ি দখল হয়ে গিয়েছিল। পরবর্তীতে আমরা সেগুলো দখলমুক্ত করেছি। আসাদুজ্জামান নূর বলেন, পুরোনো ঢাকা নিয়ে আমাদের কষ্ট আছে। আইনি জটিলতা এবং অর্থাভাবে আমরা পুরোনো ঢাকার ঐতিহাসিক বাড়ি রক্ষা করতে পারছি না। যারা মালিক তাদেরও দোষ দিতে পারছি না। কারণ, একজন মালিকের বাড়ি ১০০ বছর হয়ে গেছে। একটি ১০০ বছরের পুরোনো বাড়ির মালিককে আমরা কোন ধরনের আর্থিক সহযোগিতা দিতে পারছি না। ফলে তাদের বাড়িটি রেখে দেয়ারও অনুরোধ করতে পারছি না। রোজ গার্ডেন সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, রোজ গার্ডেনটিকে ঢাকার মহানগরের ইতিহাসের জাদুঘর হিসেবে নির্মাণ করা হবে। মূল প্রাসাদটি অক্ষত রেখে তার পাশে মূল ভবনের আদলে আরেকটি ভবন তৈরি করে এই জাদুঘর নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। ইতিমধ্যে রোজ গার্ডেনের মালিক আমাদের কাছে তাদের দলিলপত্র জমা দিয়েছে।

মাহফুজা খানম তার বক্তব্যে পুরোনো ঢাকা এবং এশিয়াটিক সোসাইটির বর্ণনা দিয়ে ঐতিহ্য জাদুঘরে যারা নিদর্শন দিয়েছেন তাদের ধন্যবাদ জানান।

ঢাকার নবাবদের নিমতলী প্রাসাদের পশ্চিম প্রবেশদ্বার নিমতলী দেউড়ী নামে খ্যাত। সময়ের পরিক্রমায় নবাবদের প্রাসাদ এক সময় ধ্বংস হয়ে যায়। শুধু বেঁচে থাকে ধ্বংসপ্রাপ্ত নিমতলী দেউড়ীটি। কয়েক বছর আগে এই দেউড়ীকে এশিয়াটিক সোসাইটি ঢাকার ৪০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সংস্কার করা হয়। গতকাল দেউড়ীটিকে এশিয়াটিক সোসাইটি একটি বিশেষায়িত জাদুঘরে রূপান্তরের মাধ্যমে শুভ উদ্বোধন করেন। জাদুঘরটি ১৭০০-১৯০০ সাল পর্যন্ত ঢাকা এবং পূর্ব বাংলার সমাজ, সংস্কৃতি ও জীবনভিত্তিক নিদর্শন দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। এসব নিদর্শন ঢাকার ১৬টি বনেদি ও সংস্কৃতিবান পরিবারের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। আগামী সপ্তাহে জাদুঘরটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হবে।