menu

কক্সবাজারে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদকালে

ব্যবসায়ী-পুলিশ সংঘর্ষ সংবাদকর্মীসহ আহত ১৫

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, কক্সবাজার
  • ঢাকা , রবিবার, ১৮ অক্টোবর ২০২০
image

কক্সবাজারের কলাতলিতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ -সংবাদ

কক্সবাজারের কলাতলী সুগন্ধা পয়েন্টে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানে ব্যবসায়ী ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে সংবাদকর্মীসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের ঘটনাস্থল হতে উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের পরিচয় তাৎক্ষণিক জানা সম্ভব হয়নি। গতকাল বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে প্রশাসন বুল্ডোজার দিয়ে সড়কের দু’ পাশের অবৈধ দোকানগুলো গুড়িয়ে দেয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় পরিস্থিতি শান্ত করতে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান ঘটনাস্থলে আসেন। পরে তিনি ব্যবসায়ীদেরকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে আহ্বান জানিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের যৌথ উদ্যোগে এ অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করছেন। উক্ত অভিযানে রয়েছেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব আবু জাফর মোহাম্মদ রাশেদ, কক্সবাজার সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ শাহরিয়া মোক্তার, কক্সবাজার সদর থানার ওসি মনিরুল গীয়াসের নেতৃত্বাধীন টিম। তবে অভিযানে গিয়ে প্রতিবন্ধকতায় সম্মুখীন হয়েছে প্রশাসনের এ যৌথ টিম। এ সময় ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ থামাতে পুলিশের পক্ষ থেকে ফাঁকা গুলি বর্ষণ, রবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে।

উচ্ছেদের ব্যাপারে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর রাশেদ বলেন, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট নির্দেশ দিয়েছেন আজকের মধ্যে এসব স্থাপনার মালামাল এবং স্থাপনা সরিয়ে নিতে হবে। আর এ ঘটনায় যারা ইন্দন দিয়েছেন বা যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। কক্সবাজার সদর সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ শাহরিয়া মোক্তার বলেন, আদালতের নিদের্শে এ উচ্ছেদ অভিযান চলছে। তিনি আরও বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টের ৫২টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে গত ২০১৮ সালের ১০ এপ্রিল নোটিশ প্রদান করে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। এর প্রেক্ষিতে উচ্ছেদের বিরুদ্ধে একই বছর ১৬ এপ্রিল হাইকোর্ট রুল জারি করে স্থগিতাদেশ দেন। এদিকে আদালতের এ স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে গত ১ অক্টোবর ভূমি মন্ত্রণালয় ও রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত ভার্চয়াল আপিল বেঞ্চ সেটি খারিজ করে দিয়ে রায় দেন। এতে প্রশাসনের সংশ্লিষ্টদের উচ্ছেদ করার নির্দেশও দেয়া হয়।