menu

পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত হয়নি ফখরুল

  • ঢাকা , বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০

পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঠিক তদন্ত হয়নি বলে মনে করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, আমরা পিলখানা হত্যাকাণ্ডের যে বিচারটি দেখেছি, তাতে অভিযুক্তরা বলেছেন, সঠিক বিচার হয়নি। আমরাও তাই মনে করি পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঠিক বিচার হয়নি। তাছাড়া সেনাবাহিনী কর্তৃক যে তদন্ত করা হয়েছিল তার রিপোর্ট আজও প্রকাশ করা হয়নি। তবে আমরা যদি কখনও সুযোগ পাই তাহলে অবশ্যই এর সঠিক তদন্ত করা হবে। পিলখানা হত্যাকাণ্ডের ১১তম বার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল বনানীর সামরিক কবরস্থানে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজ একটি মর্মান্তিক ও কলঙ্কিত দিন। এই দিনে সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনী তৎকালীন বিডিআর সদরদফতর পিলখানায় ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তমূলক হত্যাকাণ্ড ঘটে। একটি চক্রান্তমূলক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে ৫৭ জন অত্যন্ত ট্যালেন্টেড সামরিক কর্মকর্তাকে হত্যা করা হয়। এদিনটি বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি সরাসরি আক্রমণ বলে আমরা মনে করি। এই দৃষ্টিতে এই দিনটিকে আমরা মনে করি আমাদের জাতীয় জীবনেও প্রচণ্ড রকমের প্রভাব পড়েছে। আজ আমরা দেখছি আমাদের দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিপন্ন হয়ে পড়েছে। আমাদের মূল যে বিষয় গণতন্ত্র সেটিকে হরণ করা হয়েছে। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রতীক দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে অন্তরীণ করে রাখা হয়েছে।

পিলখানা ট্র্যাজেডির তদন্ত ও বিচারের প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমরা যে বিচারটি দেখেছি, অভিযুক্তরাও বলেছেন সঠিক বিচার হয়নি। আমরাও তাই মনে করি পিলখানা হত্যাকাণ্ডের সঠিক বিচার হয়নি। সেনাবাহিনী কর্তৃক যে তদন্ত রিপোর্ট আজও সেটা প্রকাশ করা হয়নি। তিনি আরও বলেন, দুঃখজনক হলেও এটা সত্য আজকাল আমরা বিচার বিভাগের স্বাধীনতা দেখতে পাচ্ছি না। সুতরাং সেই ধরনের তদন্ত কতোটুকু সত্যকে প্রকাশ করবে তা আমরা জানি না। তবে আমরা যদি কখনও সুযোগ পাই তাহলে অবশ্যই সুষ্ঠু সঠিক-তদন্ত করা হবে।

পটুয়াখালীতে যুবদলের কর্মিসভায় হামলায় ফখরুলের বিবৃতি :

এক বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বর্তমান আওয়ামী অবৈধ শাসকগোষ্ঠী বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর কোন সভা সমাবেশ তো দূরের কথা, ঘরোয়া কোন আলোচনা সভাকেও বরদাস্ত করছে না। অবৈধভাবে ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে নেতাকর্মীদের ওপর চলমান জুলুম-নির্যাতনের অংশ হিসেবেই গতকাল পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় যুবদলের কর্মিসভায় হামলা চালিয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও আহত করেছে পুলিশ।

তিনি বলেন, দেশে এখন পুলিশি শাসন চলছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে যে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দলীয় কর্মীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। জনগণ নয় বরং চিরকাল ক্ষমতায় থাকতে বিনা ভোটের সরকার এখন পুরোমাত্রায় পুলিশের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, দেশের মানুষসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের ওপর জুলুমের স্টিমরোলার চালিয়ে পৃথিবীর কোন স্বৈরশাসকই ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে পারেনি। বরং ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে।