menu

কিশোরগঞ্জের হাওরে

ধানকাটা শ্রমিক সংকট

মাঠে নামলেন এমপি তৌফিক

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, কিশোরগঞ্জ
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৯ এপ্রিল ২০২০

কিশোগঞ্জের বিস্তীর্ণ হাওরাঞ্চলে প্রতি বছরই উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে হাজার হাজার কৃষি শ্রমিক আসেন ধান কাটতে। কিন্তু এবারের করোনা পরিস্থিতির কারণে শ্রমিক সঙ্কট নিয়ে শঙ্কিত কৃষকরা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে আগাম জাতের ধান পুরোদমে কাটা শুরু হয়ে যাবে। কিন্তু এখনই কিছু কিছু জমির ধান পেকে গেছে। ফলে কৃষকের জমির ধান কাটতে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সন্তান হাওর সমৃদ্ধ কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের এমপি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। তিনি গতকাল মিঠামইনের ঢাকি এলাকায় মাস্ক পরে কাস্তে হাতে জমিতে নেমে কৃষকদের পাকা ধান কেটে দিয়েছেন। তার আহ্বানে এলাকার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও কৃষকদের সাহায্যে জমিতে নেমে সেচ্ছাশ্রমে ধান কেটে দিয়েছেন। এমপি তৌফিক হাওরের কৃষকদের এই দুঃসময়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদেরকে কৃষকদের পাকা ধান কেটে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে কিশোরগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, এবার জেলার ১৩ উপজেলায় মোট এক লাখ ৬৬ হাজার ৭১০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। চাল উৎপাদন হবে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ মেট্রিকটন। এরমধ্যে কেবল হাওর অধ্যুষিত এলাকাতেই বোরো আবাদ হয়েছে এক লাখ তিন হাজার ২৪৫ হেক্টর জমিতে। এই বিপুল পরিমাণ জমির ধান স্থানীয় শ্রমিক দিয়ে কিছুতেই কাটা, মাড়াই করা এবং গোলায় তোলা সম্ভব হবে না। ফলে তিনি অধিদফতরের মাধ্যমে কৃষি মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানিয়েছেন, যেন অন্তত ধান কাটার সময় বাইরের শ্রমিকদের আসার ক্ষেত্রে তাদের জন্য বিশেষ গণপরিবহনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তিনি বলেন, যদি জমির ধান নিরাপদে তোলা না যায়, তাহলে করোনার পাশাপাশি ভয়াবহ খাদ্য সঙ্কটেও দেশ বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে। মানুষকে না খেয়ে মরতে হবে। কাজেই এ ব্যাপারে তিনি মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছেন।