menu

কারাগারেই সন্তানের সামনে বিয়ে হলো ধর্ষণের শিকার নারীর

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, রাজশাহী
  • ঢাকা , রবিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০

বাবা কে জানলেও স্বীকৃতি মেলেনি ছেলেটির। একে একে বয়স বেড়ে এখন নয় বছর। পড়ে দ্বিতীয় শ্রেণীতে। ছেলের বাবার পরিচয় পেতে ধর্ষণের শিকার রাজশাহীর গোদাগাড়ীর সেই মা ছেলের জন্মের আগ থেকেই আইনি লড়াই করে গেছেন। সেই লড়াইয়ে তিনি জয়ী হলেন গতকাল। উচ্চ আদালতের নির্দেশে সেই নারীর সঙ্গে বিয়ে দেয়া হয়েছে ছেলেটির বাবার। যিনি ধর্ষণের দায়ে যাবজ্জীবন সাজা ভোগ করছেন। ভিকটিমকে বিয়ে করার শর্তে জামিন দেয়ার কথা রয়েছে তার।

গত ২২ অক্টোবর ধর্ষণ মামলার আসামি ও ভিকটিমের মধ্যে বিয়ে সম্পন্ন করতে রাজশাহী কারাগারের তত্ত্বাবধায়কের প্রতি নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। সে বিষয়ে ৩০ দিনের মধ্যে লিখিতভাবে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। আদালত উভয়পক্ষের সম্মতিতে এ আদেশ দেন।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ তত্ত্বাবধায়ক সুব্রত কুমার বালা জানান, আদালতের নির্দেশে এই বিয়ের আয়োজন করা হয়। গতকাল বেলা ১১টার দিকে কনেপক্ষকে কারাফটকে আসার সময় দেয়া ছিল। নির্ধারিত সময়ের একটু পর কনেসহ দুই পক্ষের ১৪ জন কারাফটকে উপস্থিত হন। তাদের কারা তত্ত্বাবধায়কের নির্দেশে তার কার্যালয়ে বসানো হয়। পরে ধর্ষণের শিকার নারীর সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিয়ে সম্পন্ন হয়।