menu

বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি

সাবেক ছয় এমডিসহ ২২ জনকে কারাগারে প্রেরণ

সংবাদ :
  • চিত্ত ঘোষ, দিনাজপুর
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে ২৪৩ কোটি ২৮ লাখ ৮২ হাজার ৫০১ টাকার কয়লা চুরির মামলায় খনির সাবেক ছয় ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ২২ জন কর্মকর্তার জামিন বাতিল করে কারাগারে প্রেরণের আদেশ দিয়েছে জেলা স্পেশাল জজ আদালত।

দিনাজপুর দুদক-এর পিপি আইনজীবী মো. আমিনুর রহমান জানান, গতকাল স্পেশাল আদালতে বিচারের প্রথম দিন পূর্ণ জামিন শুনানির জন্য ধার্য্য ছিল। দুপুর ২টায় দিনাজপুর স্পেশাল জজ মো. মাহমুদুল করিমের আদালতে দিনাজপুর বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির সাবেক ও বর্তমান ২২ কর্মকর্তা আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন। বিচারক জামিন শুনানি শেষে ওই ২২ কর্মকর্তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। মামলার আসামিরা সবাই জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীনে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে কর্মরত থেকে এই অপরাধ সংঘটিত করে।

সাবেক ছয় এমডি হলেন- যথাক্রমে আবদুল আজিজ খান, প্রকৌশলী খুরশীদুল হাসান, প্রকৌশলী কামরুজ্জামান, আমিনুজ্জামান, প্রকৌশলী এসএম নুরুল আওরঙ্গজেব ও প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদ। অন্য কর্মকর্তাদের মধ্যে সবাই সাবেক ডিজিএম ও জিএম পর্যায়ের কর্মকর্তা। দিনাজপুর কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক মো. ইসরাইল হোসেন জানান, গ্রেপ্তারকৃত ২২ আসামিকে গতকাল জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। তিনি জানান, এই মামলায় চার্জশিটভুক্ত ২৩ জন আসামির মধ্যে সাবেক মহাব্যবস্থাপক মাহবুবুর রহমান মৃত্যুবরণ করায় বিচারক তাকে মামলার দায় থেকে অব্যাহতি প্রদান করেছে। এখন চার্জশিটভুক্ত ২২ আসামির বিরুদ্ধে বিচারক আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ গ্রহণ শুনানির জন্য দিন ধার্য্য করার আদেশ প্রদান করেছেন।

আসামি পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাড. নুরুজ্জামান জাহানী, অ্যাড. তৌহিদুল ইসলাম ও দিনাজপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি মো. মাজহারুল ইসলাম সরকার। উল্লেখ্য, দুদক দিনাজপুর জেলা কার্যালয় ১ লাখ ৪৩ হাজার ৭২৭.৯৯ মেট্রিক টন কয়লা (যার আনুমানিক মুল্য ২৪৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা) আত্মসাৎ মামলায় এসব কর্মকর্তাকে আসামি করে মামলা করে এবং ২০১৯ সালের ২৩ জুলাই তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপ-পরিচালক সামসুল আলমের পক্ষে দুদক দিনাজপুর সমন্বিত কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। পরে ২০১৯ সালের ১৫ অক্টোবর দিনাজপুর জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভুঞা খনির সাবেক ৭ এমডিসহ ২৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আদেশ প্রদান করেন। পরবর্তীতে আসামিদের কয়েকজন গ্রেপ্তারও হোন এবং পরে সবাই জামিন প্রাপ্ত হোন।