menu

‘ইরানের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার সাহস কারও নেই’

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • ঢাকা , বুধবার, ১৫ মে ২০১৯
image

হাসান রুহানি

সংযুক্ত আরব আমিরাতের অভিযোগ, রোববার দেশটির ফুজাইরা উপকূলের কাছে কমপক্ষে ৪টি জাহাজে ‘অন্তর্ঘাতমূলক হামলা’র ঘটনা ঘটেছে। তবে আমিরাতের কর্তৃপক্ষ এ অন্তর্ঘাতমূলক ঘটনর জন্য কে বা কারাদায়ী, সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানায়নি। তবে ক্ষয়ক্ষতি ও নাবিকদের কোন ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ঘটনা নিয়ে উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে ইরান ও মার্কিন স্বার্থের সংঘাতের জের ধরে পারস্য উপসাগরে যুদ্ধের আশঙ্কা করছেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা। এর মধ্যেই ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, তার দেশের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর শক্তি বিশ্বের কোন দেশের নেই।

একই দিন লেবাননের ইরানপন্থি এক টেলিভিশন ‘উপসাগরীয় সূত্র’কে উল্লেখ করে ফুজাইরা বন্দরে একাধিক বিস্ফোরণের ঘটনার কথা জানায়। তবে আল-মায়াদিন টেলিভিশনের এ দাবির পক্ষে কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ইরানের ক্ষেত্রে ট্রাম্প প্রশাসনের একতরফা পদক্ষেপের ফলে ইউরোপ তথা বিশ্বের অনেক শক্তি সন্তুষ্ট নয়। পরমাণু চুক্তির ভবিষ্যৎ নিয়েও তাদের মনে অনিশ্চয়তা বাড়ছে। পরমাণু কর্মসূচি বাড়ানোর বিষয়ে ইরানের হুমকি নিয়েও উদ্বিগ্ন তারা।

এদিকে সোমবার সুন্নী আলেমদের এক সমাবেশে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, ইরানের মুসলিম জাতি এতটা শক্তিমত্তার অধিকারী যে, তার নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার সাহস কারও নেই। শত্রুদের পক্ষ থেকে ইরানকে নানামুখী হুমকি দেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘আমরা এদেশের সম্মান ও মর্যাদা রক্ষা করে শত্রুদের পরাজিত করার মাধ্যমে বর্তমান কঠিন পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবো।’ এ সময় ইরানের ইসলামী বিপ্লবের আন্দোলনের দিনগুলোসহ পরবর্তীতে বিপ্লবকে রক্ষা করার কাজে সুন্নি মুসলিমদের অবদানের কথা স্মরণ করেন প্রেসিডেন্ট রুহানি। তিনি বলেন, ইরানের ইসলামী বিপ্লব সুনির্দিষ্ট কোন মাজহাবের অর্জন নয় বরং এদেশের সব মাজহাবের মানুষ এ বিপ্লবকে সফল করেছে এবং প্রত্যেকের অধিকার এখানে সমুন্নত রয়েছে।