menu

ভারতে একদিনে সাড়ে ৬ হাজারেরও বেশি করোনা রোগী শনাক্ত

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • ঢাকা , শনিবার, ২৩ মে ২০২০
image

বিধিনিষেধ শিথিল করায় করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে বাসে মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলছেন ভারতীয়রা- ডব্ল্উিকেজেডও ডটকম

বিশ্বের প্রায় ১৯০টি দেশ ও অঞ্চলে ৩ লাখ ৩৩ হাজারেরও বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নেয়া নতুন করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এ ভারতে গত বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে আরও ৬ হাজার ৮৮ জনের দেহে করোনার উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, দেশটিতে এর আগে একদিনে এত কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়নি। এনডিটিভি।

প্রাণঘাতী এ ভাইরাসটির সংক্রমণ ঠেকাতে গত ২৫ মার্চ থেকে তিন ধাপে দেয়া লকডাউন ও পরবর্তী ধাপে বিধিনিষেধ শিথিল করার পর থেকে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। দেশটির সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি সরকারি হিসাবের বরাতে এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গতকাল শুক্রবার সকাল পর্যন্ত প্রাণঘাতী এ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত আরও ১৪৮ জনের মৃত্যুর খবরও নিশ্চিত করেছে ভারতীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার এ দেশটিতে কোভিড-১৯ এ মোট মৃত্যু ৩ হাজার ৫৮৩ তে দাঁড়িয়েছে। এদিকে বৈশি্বেক মহামারী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ লাখ ছাড়িয়েছে। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের সার্বক্ষণিক পরিসংখ্যান রাখা যুক্তরাষ্ট্রের বাল্টিমোরভিত্তিক বিশ্ববিদ্যালয় জনস হপকিন্সের দেয়া সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, বিশ্বের ১৮৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এ গতকাল শুক্রবার সকাল পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ লাখ ১ হাজার ৯৬৭ জন। এছাড়াও এদিন বিশ্বে কোভিড-১৯ রোগে মারা গেছেন ৩ লাখ ৩২ হাজার ৯০০ জন।

অপরদিকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ১৮ হাজার ছাড়িয়ে গেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বশেষ দেয়া তথ্যে দেখা যাচ্ছে। তবে ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আক্রান্তদের মধ্যে ৪৮ হাজার ৫৩৪ জন ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। তাদের হিসাবে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হওয়ার হার বেড়ে ৪০ দশমিক ৯৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে বলেও জানানো হয়েছে। এর আগের দিন বৃহস্পতিবার সকালেও এ হার ছিল ৪০ দশমিক ৩১ শতাংশ।

দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য মহারাষ্ট্রে ইতোমধ্যেই আক্রান্তের সংখ্যা ৪১ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। ভারতে সংক্রমণের অন্যতম এ ‘হটস্পটে’ মৃতের সংখ্যাও প্রায় ১ হাজার ৫০০-এর কাছাকাছি পৌঁছেছে। আক্রান্তদের চিকিৎসায় বেসরকারি হাসপাতালগুলোর ৮০ শতাংশ শয্যার নিয়ন্ত্রণ নেয়ার কথা জানিয়েছে রাজ্যটির সরকার। বেসরকারি হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার খরচ বেঁধে দেয়ার কথাও বলেছে তারা।

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ভারতীয় কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকা পর্যালোচনায় গতকাল শুক্রবার বিরোধীদলগুলোর একটি বৈঠক হওয়ারও কথা। দেশটির অন্যতম প্রধান বিরোধী দল ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের ভারপ্রাপ্ত প্রধান সোনিয়া গান্ধীর সভাপতিত্বে এতে অন্যদের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা ব্যানার্জি এবং মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী ও শিবসেনাপ্রধান উদ্ধভ ঠাকরেও থাকবেন বলে তাদের দলের নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন। তবে সরকারবিরোধী সব দলের শীর্ষ নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হলেও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আমআদমি পার্টির নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল, বহুজন সমাজবাদী দলের প্রধান মায়াবতী ও সমাজবাদী দলের অখিলেশ যাদব বৈঠকে থাকছেন না।

প্রায় দুই মাস ধরে ভারতে চলমান বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ায় সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার দেশটির কর্তৃপক্ষ বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয় টিকিটের দামের সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে। আগামী জুন মাসের প্রথম দিন থেকে যাত্রীবাহী ২০০টি ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত হওয়ায় গতকাল শুক্রবার থেকে সুনির্দিষ্ট কিছু স্টেশনে সংরক্ষিত আসনের টিকিট বুকিং শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। এরই অংশ হিসেবে ধাপে ধাপে আরও ট্রেন চালু করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পিয়ুষ গয়াল।

লকডাউনের কারণে বিভিন্ন স্তানে আটকা পড়া ভাসমান শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে দেশটিতে এখন দিল্লি ও অন্য শহরে ২০টি বিশেষ ‘শ্রমিক’ ট্রেন চালু আছে।