menu

দক্ষিণ এশীয় অর্থনৈতিক জোট গঠনের উদ্যোগ ভারতের

সাসেক বাস্তবায়নে নয়াদিল্লিতে শিঘ্রই বৈঠকে বসবেন সাতটি দেশের অর্থমন্ত্রীওসাসেক বাস্তবায়নে নয়াদিল্লিতে শিঘ্রই বৈঠকে বসবেন সাতটি দেশের অর্থমন্ত্রী

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • ঢাকা , মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

পাকিস্তানকে বাদ দিয়ে নতুন দক্ষিণ এশীয় অর্থনৈতিক জোট গঠনের উদ্যোগ নিচ্ছে ভারত। আঞ্চলিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা জোরদারের লক্ষ্যে এ সিদ্ধান্ত নিচ্ছে দিল্লি। প্রস্তাবিত এ অর্থনৈতিক জোটের নাম হবে সাউথ এশিয়া সাব-রিজিওনাল ইকোনোমিক কো-অপারেশন (সাসেক)। গত রোববার টাইমস অব ইন্ডিয়া এ তথ্য জানিয়েছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, পারমাণবিক শক্তিধর প্রতিবেশী ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে রাজনৈতিকবিরোধ চরমে পৌঁছানো এবং সার্কের ধীর অগ্রগতির কারণে ভারতীয় নীতি-নির্ধারকরা বাংলাদেশ ও মায়ানমারের মতো দ্রুত বর্ধনশীল দক্ষিণ এশীয় দেশগুলিকে সঙ্গে নিয়ে সামনে এগুনোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সাব-রিজিওনাল জোটের সদস্য রাষ্ট্র মায়ানমার, বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও ভারতের অর্থমন্ত্রীরা নয়াদিল্লিতে প্রথমবারের এ বিষয়ে বৈঠকে বসবেন। জোটটির নীতি ও কৌশল নির্ধারণ করতে আগামী বসন্তে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)-এর প্রেসিডেন্ট তাকেহিকো নাকাও বলেন, ‘ভারত মায়ানমার, বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপ নিয়ে গঠিত এই জোট সাসেকের বিষয়ে ভারত অত্যন্ত আগ্রহী। আঞ্চলিক একত্রীকরণ ও সহযোগিতা খুব গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ খুব ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। ২০১১ সালে সাসেক গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়। ওই সময় বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল উপ-আঞ্চলিক অর্থনৈতিক অগ্রগতির জন্য সহযোগিতা গভীর করতে সম্মত হয়। মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কা ২০১৪ সালে অন্তর্ভুক্ত হয় আর ২০১৭ সালে মায়ানমার এতে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ২০১৭ সালে সাসেক অন্তর্ভুক্ত দেশগুলোর মন্ত্রীরা জোট গঠনের উদ্যোগ এগিয়ে নেয়ার জন্য আলোচনা করেন। কিন্তু এরপর অগ্রগতি খুব সামান্য। কিন্তু এখন ভারতের উদ্যোগের কারণে আঞ্চলিক জোটটি স্পষ্ট রূপরেখা পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।