menu

তুরস্কে ধর্মগুরুর নারী ধর্ষণের দায়ে ১০৭৫ বছরের জেল

  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২১
image

পিল খাইয়ে নারী শিষ্যদের ওপর যৌন নির্যাতনসহ নানা অভিযোগে ৬৪ বছরের জনপ্রিয় টিভি ধর্মপ্রচারক আদনান ওকতারকে তুরস্কের আদালত ১০৭৫ বছরের কারাদ- দিয়েছেন। আনাদলু এজেন্সি

দেশটির একটি আদালতে ওকতারের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি, নাবালিকাদের যৌন নির্যাতন, প্রতারণা এবং রাজনৈতিক ও সামরিক গুপ্তচরভিত্তিক কাজের অভিযোগ আনা হয়। পরে আদালত এ রায় দেন। ওকতারের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, অশ্লীল পোশাক পরা নারী নিয়ে থাকতেন তিনি এব?ং তাদের ‘বিড়াল ছানা’ বলে ডাকতেন ওকতার। পাকিস্তানের সংবাদ মাধ্যম ডন অনলাইন জানিয়েছে, আদনান ওকতার যখন সৃজনশীলতা এবং রক্ষণশীল মূল্যবোধের প্রচার করতেন, তখন নারীরা অর্ধনগ্ন পোশাকে টিভি স্টুডিওতে সংগীতকে উজ্জীবিত করার জন্য তার চারপাশে নৃত্য করতেন। ধারণা করা হচ্ছে, ওই নারীরা অনেকেই প্লাস্টিক সার্জারি করেছিলেন। ২০১৮ সালে দুই শতাধিকের বেশি অনুসারীসহ আদনান ওকতারকে গ্রেপ্তার করে ইস্তাম্বুল পুলিশ।

তুর্কি সংবাদ মাধ্যম আনাদলু এজেন্সি জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ধর্মপ্রচারক ফেতুল্লা গুলেনের নেতৃত্বে ২০১৬ সালে তুরস্কে ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানেও আদনান ওকতার জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এর আগে ডিসেম্বরে ওকতার বিচারককে বলেছিলেন, তার প্রায় এক হাজার গার্লফ্রেন্ড রয়েছে। অক্টোবরে এক শুনানিতে ওকতার বলেছিলেন, নারীদের জন্য আমার হৃদয়ে ভালোবাসা উপচে পড়ে। প্রেম একটি মানবিক গুণ। এটি একটি মুসলিমের গুণ। আরেক শুনানিতে তিনি বলেন, আমি অসাধারণ শক্তিমান।