menu

বাস-ট্রাকের প্রতিযোগিতায় প্রাণ গেল হেলপারের

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে ট্রাকের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসের হেলপার নিহত হয়েছেন। তার নাম আবদুল কুদ্দুস (৪৫)। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বাসটির সুপারভাইজার। গতকাল ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কুদ্দুসের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার নবীয়াবাজ গ্রামে। বাবার নাম আবদুর রব। তার স্ত্রী ও দুই মেয়ে রয়েছে।

যাত্রাবাড়ী থানার এসআই কে এম আজিজুল হক জানান, এ ঘটনায় ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে চলাচল করা শ্যামলী পরিবহনের বাসটি ও ট্রাক জব্দ করা হয়েছে। তবে দুই চালকই পালিয়ে গেছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

আহত সুপারভাইজার মনিরুজ্জামান জানান, চট্টগ্রাম থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকায় ফিরছিলেন তারা। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মাতুয়াইল মা ও শিশু হাসপাতালের সামনে দুই লেনে সব গাড়ি ছিল। তাদের বাসটি ছিল বাম পাশে, সামনে ছিল রডবোঝাই ট্রাক। তাদের বাসটি বাম পাশ থেকে ডান পাশ হয়ে সামনে যাওয়ার সময় সামনের ট্রাকটি ডানপাশে চলে আসে। এতে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। ট্রাকের পেছনের রড বাসের সামনের দিকে লেগে দেবে যায়। বাসের সামনের গ্লাস ভেঙে পড়ে। বাসের সামনের দিকে দাঁড়িয়ে থাকা হেলপার কুদ্দুসের শরীরে ট্রাকের রড ঢুকে যায়। তিনি সামনের দিকে পড়ে যান। তিনিও পায়ে আঘাত পান। পরে কুদ্দুসকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসলে চিকিৎসক সকাল সাড়ে ৬টায় মৃত ঘোষণা করেন। কুদ্দুসের স্ত্রী ফেরদৌসী বেগম জানান, তাদের দুটি মেয়ে রয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে সোমবার বিকালে স্বজনরা কুদ্দুসের মরদেহ নিয়ে যান।

এদিকে, রাজধানীর লালবাগ থানার আজিমপুরে সততা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনের ফুটপাত থেকে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম হোসনে আরা (৫০)। পুলিশ জানায়, গতকাল সকালে আজিমপুর সততা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনে থেকে হোসনে আরা নামের ওই নারীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক সকাল সাড়ে ১১টায় ওই নারীকে মৃত ঘোষণা করেন। ঢামেক হাসপাতালের পুলিশফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া জানান, হোসনে আরার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। তবে তার বিস্তারিত পরিচয় এখনও জানা যায়নি।