menu

টাঙ্গাইলে চলন্ত বাসে ধর্ষণ মামলায়

চার আসামির যাবজ্জীবন

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, টাঙ্গাইল
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে চলন্ত বাসে এক গার্মেন্টে কর্মীকে গণধর্ষণ মামলায় ৪ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়া প্রত্যেক আসামিকে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক বেগম খালেদা ইয়াসমিন গতকাল তিন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। এই মামলার এক আসামি পলাতক।

দন্ডপ্রাপ্তরা হলো বিনিময় পরিবহনের বাসচালক হাবিবুর রহমান নয়ন (২৮), সুপারভাইজার রেজাউল করিম জুয়েল (৩৮), হেলপার আবদুল খালেক ভুট্টো (২৩) ও মোহাম্মদ আশরাফুল (২৬)। তাদের মধ্যে সুপারভাইজার জুয়েল পলাতক।

টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম ও মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ এপ্রিল কালিয়াকৈরের মৌচাকে কর্মরত এক গার্মেন্ট কর্মী টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর ৫টার দিকে ‘বিনিময় পরিবহন’-এর একটি বাসে কালিকৈরের উদ্দেশে রওনা হন। এ সময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে কিছুদূর যাওয়ার পর বাসের শ্রমিকরা জানালা-দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন তাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে পেছনের সিটে নিয়ে ধর্ষণ করে। পালাক্রমে বাসের সুপারভাইজার ও হেলপারও ধর্ষণ করে। বাসটি ঢাকা না গিয়ে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের একটি ফাঁকা জায়গায় ওই গার্মেন্ট কর্মীকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে ভিকটিম স্বামীকে বিস্তারিত জানালে তার স্বামী তাকে টাঙ্গাইল সদর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করান। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বাসের চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারকে ওইদিনই গ্রেফতার করে। ধর্ষিতার স্বামী বখতিয়ার বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর মডেল থানায় ৯ জনকে আসামি করে মামলা করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে ৫ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেন এবং ৬ জনকে এ মামলা থেকে অব্যহতি প্রদান করে। গ্রেফতারকৃত তিন আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। মামলার বাদীসহ ৯ জন আদালতে সাক্ষী প্রদান করেন।