menu

ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা

খালেদার আবেদনের বিষয়ে আদেশ ১৪ অক্টোবর

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , শুক্রবার, ১২ অক্টোবর ২০১৮

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশের জন্য ১৪ অক্টোবর দিন নির্ধারণ করেছেন হাইকোর্ট। গতকাল বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হলে আদেশের জন্য এই দিন ধার্য করেন। আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী।

খালেদা জিয়ার বিচারের জন্য কারা অভ্যন্তরে যে আদালত স্থাপন করা হয়েছে তা অবৈধ দাবি করে মামলার বিচারকাজ স্থগিত চেয়ে রিভিশন আবেদন করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। একই সঙ্গে আবেদনটিতে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে কারা অভ্যন্তরে স্থাপিত আদালতে তার বিচার চলবে বলে আদালত যে আদেশ দিয়েছেন তা বাতিল চাওয়া হয়। এরআগে, গত ২১ সেপ্টেম্বর এই মামলায় খালেদা জিয়া ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ আদালতে না আসায় তার অনুপস্থিতিতেই বিচার চলবে বলে আদেশ দেন কারা অভ্যন্তরে স্থপিত আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

নাইকো দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ৮ নভেম্বর : নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য আগামী ৮ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯ এর বিচারক মাহমুদুল হাসান এই দিন ধার্য করেন। এদিন মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। আসামি পক্ষের আইনজীবীরা অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য সময়ের আবেদন করেন। সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আদালত নতুন এদিন ধার্য করেন।

প্রসঙ্গত, কানাডীয় প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতি সাধন ও দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম গত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় নাইকো দুর্নীতি মামলাটি দায়ের করেন। মামলাটিতে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়।

কুমিল্লার নাশকতা মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি ১৪ অক্টোবর : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কুমিল্লায় নাশকতা অভিযোগের মামলায় জামিন চেয়ে করা আবেদনের ওপর রাষ্ট্রপক্ষের শুনানির জন্য আগামী রোববার দিন নির্ধারণ করেছেন হাইকোর্ট। গতকাল বিচারপতি একেএম আসাদুজ্জামান এবং বিচারপতি এসএম মজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে খালেদা জিয়ার আবেদনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে সময় আবেদন করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. বশীর আহমেদ। অন্যদিকে, খালেদা জিয়ার পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল।

প্রসঙ্গত, বিএনপি-জামায়াত জোটের অবরোধ চলাকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রামে দুষ্কৃতিকারীদের বাস পোড়ানোর ঘটনায় ২০১৫ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০ মামলা করা হয়। ২০১৭ সালের ২ মার্চ ওই মামলায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। পরে এ মামলায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর বিচারিক আদালত খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন। পরে বিচারিক আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে গত ২ অক্টোবর হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় তার আইনজীবী প্যানেলের অন্যতম সদস্য ব্যারিস্টার কায়সার কামাল জামিন চেয়ে আপিল আবেদন করেন।

বিরোধ সৃষ্টির মামলায় খালেদা জিয়ার গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির বিষয়ে আদেশ ১ নভেম্বর : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে নিয়ে কটূক্তি এবং ধর্মীয় উসকানি ও বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টির অভিযোগে দায়ের করা দুই মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির বিষয় আদেশের জন্য ১ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম (এসিএমএম) আসাদুজ্জামান নূর এই দিন ধার্য করেন। এ বিষয় গতকাল আদেশের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু নথি পর্যালোচনা করে ১ নভেম্বর পুনরায় আদেশের দিন ধার্য করেন আদালত।

এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ ফের বাড়ল : জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দ-িত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ আবারও বাড়িয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আপিলের শুনানি আগামী রোববারের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গতকাল বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর এ আদেশ দেন। আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী। উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন ও ব্যারিস্টার এহসানুর রহমান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ইউসুফ মাহমুদ মোরশেদ। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম খান।

প্রসঙ্গত, জিয়া এতিমখানা ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদ- দেন ঢাকার একটি বিশেষ জজ আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই তাকে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। গত ১২ মার্চ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন হাইকোর্ট। পরে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। এ পর্যন্ত ৫ বার তার জামিনের মেয়াদ বাড়ানো হয়। এই মামলায় জামিন হলেও অন্য মামলায় আটক থাকায় এখনও তিনি মুক্তি পাচ্ছেন না। বর্তমানে কারাবন্দী খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।