menu

ঋণখেলাপিদের বিশেষ সুবিধা স্থগিত করল বাংলাদেশ ব্যাংক

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯

ঋণখেলাপিদের দেয়া বিশেষ সুযোগ স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশন গত ১৬ মে বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা সার্কুলারের ওপর আগামী ২৪ জুন পর্যন্ত স্থিতাবস্থা জারি করেছেন। ফলে আগামী ২৪ জুন পর্যন্ত বিআরপিডির সার্কুলার নম্বর-৫-এর কার্যকারিতা স্থগিত থাকবে।

গত ১৬ মে দেশের ঋণখেলাপিদের নিয়মিত হওয়ার সুযোগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই প্রজ্ঞাপনের ফলে ঋণখেলাপিরা মাত্র দুই শতাংশ ডাউনপেমেন্ট দিয়েই ঋণ পুনঃতফসিল করার কথা ছিল। পুনঃতফসিল হওয়া ঋণ পরিশোধে তারা সময় পেতেন টানা ১০ বছর। এক্ষেত্রে তাদের প্রথম এক বছর কোন কিস্তি দিতে হতো না। খেলাপিরা ব্যাংকের টাকা ফেরত দেয়া শুরু করলে নিয়মিত গ্রাহকদের চেয়েও খেলাপি গ্রাহকদের কম সুদ দিতে হবে। চিহ্নিত এই ঋণখেলাপিদের দিতে হবে ৯ শতাংশেরও কম সুদ।

ঋণখেলাপিদের এই বিশেষ সুবিধা দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে হাইকোর্ট গতকাল জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক এভাবে দুষ্টের পালন, শিষ্টের দমন করছে। ব্যাংকগুলোই মূলত ঋণখেলাপিদের সুযোগ করে দিচ্ছে। তারা দুধ-কলা দিয়ে সাপ পুষছে। ব্যাংকগুলো তাদের কথায় চলে। যারা ঋণখেলাপি, তাদের পক্ষে কাজ করার জন্য তারা উঠেপড়ে লেগেছে। ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে পাচার করা হচ্ছে, অথচ এ ব্যাপারে তাদের কোন পদক্ষেপ নেই। বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্দেশ্যই হচ্ছে- যারা লুটপাট করছে, ঋণ নিয়ে তা পরিশোধ করছে না, তাদের সমর্থন দেয়া। আদালত বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবীর উদ্দেশে বলেন, খেলাপি ঋণের পরিমাণ এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। এখন যদি তাদের ছাড় দেয়া হয়, তাহলে তারা আরও এক লাখ কোটি টাকা নিয়ে যাবে। ব্যাংকগুলো ঋণের সুদহার এক অঙ্কে নামিয়ে না আনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে হাইকোর্ট বলেন, সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনার কথা ছিল। কিন্তু তা করেনি। তারা তো প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশও মানছে না।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ব্যাংক এই সুবিধা স্থগিত করল।