menu

বরিশালে

কবি হেনরী স্বপনকে গ্রেফতার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, বরিশাল
  • ঢাকা , বুধবার, ১৫ মে ২০১৯
image

বরিশালের বিশিষ্ট কবি, সাংবাদিক, সংস্কৃতিসেবী এবং জীবনানন্দ গবেষক হেনরী স্বপনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল দুপুর ২টায় নগরীর নবগ্রাম রোডের গোল পুকুরস্থ নিজ বাসভবন থেকে তাকে গ্রেফতার করে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। বরিশাল ক্যাথলিক চার্চের ফাদার লেকা বেলিয়েল গোমেজের দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় হেনরী স্বপনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার উপ পরিদর্শক ফিরোজ আল মামুন।

আদালতের হাজতখানায় বসে হেনরী স্বপন জানান, মঙ্গলবার দুপুর আনুমানিক ২টায় কোতোয়ালি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক আল মামুন, হাসান ও রাকিবসহ ৪ জন পুলিশ কর্মকর্তা সাদা পোশাকে তার বাসায় যান। ওই চার পুলিশ কর্মকর্তা হেনরী স্বপনকে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি নুরুল ইসলামের বরাত দিয়ে জানান ‘স্যার আপনাকে যেতে বলেছেন’। এরপরই সাদা পোশাকে থাকা ওই চার পুলিশ মোটরসাইকেলে করে হেনরী স্বপনকে থানায় না নিয়ে সরাসরি নিয়ে যান মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাজতখানায়। তখনো থানা থেকে হেনরী স্বপনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার কোন কাগজপত্র বা আদালতে পাঠানো ফরোয়ার্ডিং কোর্ট হাজতে পৌঁছেনি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি মডেল থানার উপ-পরিদর্শক ফিরোজ আল মামুন জানান, ক্যাথলিক চার্চের ফাদার লেকা বেলীয়েল গোমেজ এজাহারে অভিযোগ করেছেন, ২০১৭ সালের ১৯ মে এবং একই বছরের ৩ জুলাই ফেসবুকে পৃথক পৃথক মন্তব্যে হেনরী স্বপন ক্যাথলিক চার্চের ফাদার, ব্রাদার এবং বিশপদের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য লিখে তাদের সম্মানহানি করেছেন। এছাড়াও বরিশাল থেকে প্রকাশিত একাধিক সংবাদপত্রে হেনরী স্বপন চার্চের বিরুদ্ধে মানহানিকর লেখা লিখেছেন। এতে ক্ষুদ্ধ বরিশাল ক্যাথলিক চার্চের ফাদার লেকা বেলীয়েল গোমেজ মঙ্গলবার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৮, ২৯ এবং ৩১ ধারায় মামলাটি দায়ের করেছেন (মামলা নং- ৪৮)।

এদিকে বেলা আড়াইটার দিকে কবি ও সাংবাদিক হেনরী স্বপনকে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাজতখানায় নেয়া হলেও থানা থেকে কোন কাগজপত্র হাজতখানায় না যাওয়ায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন হাজতের দায়িত্বে থাকা কোর্ট পুলিশ কর্মকর্তারা। এভাবে কাগজপত্রবিহীন কাউকে গ্রেফতার দেখিয়ে হাজতখানায় নিয়ে আসা আইনসিদ্ধ নয় বলে মন্তব্য করেন কোর্ট পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা। হেনরী স্বপনকে গ্রেফতারের খবর শুনে সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিক কর্মীরা হাজতখানায় ভীড় করলে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন কোর্ট হাজতের কর্মকর্তারা। পরে তরিঘরি করে কোতোয়ালি মডেল থানা থেকে হেনরী স্বপনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশপত্র আনার পর বিকেল ৫টায় আদালতের নির্দেশে হেনরী স্বপনকে কারাগারে পাঠানো হয়।

হেনরী স্বপনকে গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়েছে বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিইউজে), কবিতা পরিষদ ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সমম্বয় পরিষদ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বরিশাল সাংবাদিক ইউনিয়ন কার্যালয়ে বিইউজে, কবিতা পরিষদ ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সমম্বয় পরিষদ যৌথ প্রতিবাদ সভা করেছে হেনরী স্বপনকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে। প্রতিবাদ সভায় বক্তারা অবিলম্বে মুক্তমনা লেখক ও কবি হেনরী স্বপনের বিরুদ্ধে দায়ের করা কথিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা প্রত্যাহার ও তার মুক্তি দাবি করেন। পরে ওই তিন সংগঠন কবি হেনরী স্বপনের মুক্তির দাবিতে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

উল্লেখ্য ইস্টার সান-ডে’র দিন শ্রীলঙ্কার গির্জায় বোমা হামলা, প্রার্থনারত বহু মানুষের মৃত্যুতে মর্মাহত ছিলেন ক্যাথলিক খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী হেনরি স্বপন। ওই সময়ে বরিশাল ক্যাথলিক চার্চে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান হওয়ায় তিনি স্থানীয় সংবাদপত্রে ও ফেসবুকে বরিশাল চার্চের ভূমিকা নিয়ে তীব্র সমালোচনামূলক লেখা ও মন্তব্য প্রকাশ করায় চার্চ কর্তৃপক্ষ তার প্রতি ক্ষুব্ধ ছিলেন।