menu

লড়াই হবে নৌকা ধানের শীষে

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, রাজশাহী
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের এবার মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৫৭ হাজার ১৯২। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭৮ হাজার ১৯২ এবং নারী ১ লাখ ৭৯ হাজার। মোট ভোটারের মধ্যে পবা উপজেলার ভোটার ২ লাখ ২৮ হাজার ১ জন এবং মোহনপুর উপজেলায় ১ লাখ ২৯ হাজার ১৯১ জন।

২০০৮ সালে পবা ও মোহনপুর উপজেলা নিয়ে গঠিত হয় রাজশাহী-৩ আসন। এ নির্বাচনে এখনে এমপি নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগের মেরাজ উদ্দিন মোল্লা। প্রায় দেড় লাখ ভোট পেয়ে ৫০ হাজার ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থী কবির হোসেনকে পরিচিত করেন তিনি। তবে সে নির্বাচনে এ আসনে জামায়াতের প্রার্থী ছিলেন আতাউর রহমান। তিনি ভোট পেয়েছিলেন ৩৭ হাজার। বিএনপি ও জামায়াতের মোট ভোটের চেয়ে আওয়ামী লীগ ভোট বেশী ছিল প্রায় ১২ হাজার। এরপরও বিএনপির প্রার্থীর পরাজয়ের কারণ হিসেবে জামায়াতকে দোষ দেয়া হয়েছিল।

২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনপি ভোট না আসায় এ আসনে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আয়েন উদ্দিন ভোট পান ৬৭ হাজার ৮৭৯ ভোট। আর মনোনয়ন বঞ্চিত আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি মেরাজ উদ্দিন মোল্লা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে ভোট পান ১২ হাজার ৩৪৩। আর জাতীয় পার্টির প্রার্থী শাহবুদ্দিন বাচ্চু ভোট পান এক হাজার ৭৪৪ ভোট। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে ১০ জন মনোনয়নপত্র জমা দিলেও বাছাইয়ে বাদ পড়েন পাঁচজন। যাদের মধ্যে বাদ পড়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মেরাজ উদ্দিন মোল্লা, জাতীয় পার্টির প্রার্থী শাহবুদ্দিন বাচ্চু ও জামায়াতের স্বতন্ত্র প্রার্থী মাজিদুর রহমান। ফলে দুই বড় জোটের একক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

এরা হলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বধীন মহাজোটের আয়েন উদ্দিন ও বিএনপির নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শফিকুর হক মিলন। ভোটের মাঠে এই দুই প্রার্থীর মধ্যে মূল লড়াই হবে। তবে এবারো ভোটের ইস্যুতে স্থানীয় ও বহিরাগত প্রার্থী ফেক্টর হিসেবে দেখা দিবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

তাদের মতে, ২০০৮ সালের নির্বাচনে এ আসনে স্থানীয় ও বহিরাগত প্রার্থী ফেক্টর হিসেবে দেখা দিয়েছিল। বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থী ছিলেন বহিরাগত। আর আওয়ামী লীগের প্রার্থী স্থানীয় ছিলেন। এবারের নির্বাচনে বড় দুই জোটের প্রার্থীর মধ্যে আয়েন উদ্দিনের বাড়ি নির্বাচনী এলাকার মোহনপুর উপজেলায়। আর শফিকুল হকের বাড়ি নির্বাচনী এলাকার বাহিরে রাজশাহী নগরে। তবে এবার জামায়াতের প্রার্থী না থাকার করণে বাড়তি সুবিধা পাবেন শফিকুর হক মিলন। আর স্থানীয় প্রার্থী হিসেবে আয়েন উদ্দিনের থাকবে বাড়তি সুবিধা। রাজশাহী-৩ (পবা-মোহানপুর) আসনে অন্য প্রার্থীরা হলেন, ইসলামী আন্দোলনের ফজলুর রহমান, সাম্যবাদী দলের সাজ্জাদ আলী, বিএলডিপির মনিরুজ্জামান স্বাধীন।