menu

মাঠে আওয়ামী লীগ আদালতে বিএনপি

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮
image

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : কারাবন্দী নেতা আবুল কালাম পরিবার -সংবাদ

টাঙ্গাইল-৭ মির্জাপুর নির্বাচনী এলাকায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এখন নির্বাচনী মাঠে অবাদ বিচরণ করলেও বিএনপি রয়েছে আদালতে দলের হাইকমান্ডে। দলের দুই নেতা দলীয় মনোনয়নের চিঠি পাওয়ায় দ্বিধাদ্বন্দ্বের মধ্যে থেকে কেউ নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছে না। এ অবস্থায় মির্জাপুরের নির্বাচনী মাঠ এখন আওয়ামী লীগের দখলে।

টাঙ্গাইলের এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন পরপর তিনবারের এমপি সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন। মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর দল গোছানো থেকে শুরু করে নির্বাচনী প্রচারণার কাজ এখন তার হাতের মুঠোই। আনুষ্ঠিকতা তার জন্য শুধু সময়ের ব্যাপার। গত দশ বছরে এলাকায় যে উন্নয়ন কাজ তিনি করেছেন তাতে টানা চতুর্থবার এমপি হওয়ার হাতছানি তার সামনে।

এদিকে একসময় বিএনপির ঘাটি হিসেবে পরিচিত এই আসনটি এখন আওয়ামী লীগের দখলে চলে যাওয়ায় দলের ঐক্য একতা না থাকায় সাংগঠনিক ভীতও এখন দুর্বল হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় দলের দুই নেতা আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী ও সাঈদ সোহরাব পেয়েছেন দলীয় মনোনয়নের চিঠি। ঢাকার পল্টন থানায় দায়ের করা নাশকতার মামলায় গ্রেফতার হয়ে আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী এখন কারাগারে রয়েছেন। তার অনুসারীরা নির্বাচনী প্রচারণা বা দল গোছানোর পরিবর্তে আদালতেই দৌরাচ্ছেন সবসময়। মনোনয়ন নিশ্চিত না হওয়ায় সাঈদ সোহরাব কেন্দ্রে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। এ অবস্থায় একদিকে দলের সাংগঠনিক ভীত মজবুত এবং মাঠ ফাকা থাকায় বারতি সুবিধা নিয়ে আওয়ামী লীগ এখন নির্বাচনী মাঠে একক আধিপত্য বিস্তার করে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে বলে সাধারণ ভোটারদের অভিমত। পাশাপাশি বিএনপির মনোনয়ন তালিকায় তৃণমূলের দীর্ঘদিনের দাবির প্রতিফলন নতুন মুখের সম্ভাবনা দেখা দিলেও তা অনেকটা ম্লান হতে চলেছে দলীয় সিদ্ধান্তহীনতার কারণে।

কারাবন্দী আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকীর জামিনের জন্য তার অনুসারীদের সময় কাটছে আদালতের বারান্দায় আর সাইদ সোহরাবের সময় পার হচ্ছে দলের হাই কমান্ডে লবিং করে।