menu

বিদ্যুত ফেরি করছেন ‘আলোর ফেরিওয়ালা’ মিলছে ৫ মিনিটে!

সংবাদ :
  • সংবাদদাতা, দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল)
  • ঢাকা , রবিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০১৯
image

দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) : এভাবেই ভ্যানে বিদ্যুৎসামগ্রী নিয়ে বাড়ি বাড়ি ঘুরছেন পবিসের কর্মীরা -সংবাদ

যেখানে আজ থেকে ১০ বছর আগেও বিদ্যুত পাওয়াটা ছিল মানুষের জন্য স্বপ্নের ব্যাপার। দিন রাত ২৪ ঘণ্টায় যে এলাকার মানুষের ভাগ্যে বিদ্যুত জুটতো মাত্র ৪-৫ ঘণ্টা, বাসাবাড়ি কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুতের লাইন নিতে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস এমনকি বছর পেরিয়ে গেলেও মানুষ কাক্সিক্ষত বিদ্যুত পায়নি। হাজার হাজার টাকা দিয়েও যেখানে মানুষের কপালে জোটেনি বিদ্যুতের লাইন সেখানে মাত্র ৫ মিনিটে ঘরে বসেই পাচ্ছে বৈদ্যুতিক লাইন। যাদের বাড়িতে বিদ্যুত নেই তাদের আর অফিসে না গেলেও চলবে। যোগাযোগ করে তাদের বাড়িতে পৌঁছে যাচ্ছে ‘আলোর ফেরিওয়ালা’ ব্যানার লাগানো ভ্যান। ‘বিদ্যুত লাগবে, বিদ্যুত!’ ‘বিদ্যুত লাগবে, এভাবে বলে ‘আলোর ফেরিওয়ালা ’ ব্যানার লাগানো ভ্যানওয়ালা উপজেলার গ্রামে গ্রামে ঘুরছে। দেলদুয়ারে বিদ্যুত এখন ফেরি করে বিক্রি হচ্ছে। ভ্যান গাড়িতে মিটার, তার ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম নিয়ে লাইনম্যানরা একেকদিন একেক এলাকায় ছুঁটছেন। ঘরে ওয়ারিং করা থাকলে কোন ঝামেলা ছাড়াই ৫ থেকে ১০ মিনিটের মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে বিদ্যুত সংযোগ। সংযোগ ফি ও অন্য খরচ মিলিয়ে গ্রাহককে তাৎক্ষণিক রশিদের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হচ্ছে মাত্র ৪শ’ ৫০ টাকা। বর্তমান সরকারের অঙ্গীকার মোতাবেক ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে দেলদুয়ার বিদ্যুত অফিস। এ যেন দেলদুয়ারবাসীর জন্য সত্যিই স্বপ্ন। উপজেলার পল্লী বিদ্যুত সমিতির মাধ্যমে সাধারণ মানুষের আশীর্বাদ। এখানে যেমন বর্তমানে পল্লী বিদ্যুত সমিতির সেবা লোডশেডিং এক অকল্পনীয় ব্যাপার তেমনি এখানে পল্লী বিদ্যুত সমিতির উদ্যোগে মানুষের ঘরে ঘরে ভ্যানে করে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে বিদ্যুতের মিটার। টাঙ্গাইল পল্লী বিদ্যুত সমিতির দেলদুয়ার জোনাল অফিসের উপ-মহাব্যবস্থাপক বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, দেলদুয়ারে প্রায় ৯৮ ভাগ বাড়িতে বিদ্যুত সংযোগ প্রদান করা হয়েছে। বর্তমান সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী ঘরে ঘরে বিদ্যুত পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে গ্রাহকদের বিনামূল্যে খুঁটি, তার ও অন্য সরঞ্জাম প্রদান করা হয়েছে। প্রতিটি এলাকায় প্রায় বিদ্যুতের লাইন টানানো হয়েছে। খুব শীঘ্রই আমরা শতভাগ সংযোগ প্রদান করতে সক্ষম হবো। ৮ জানুয়ারি থেকে যাত্রা শুরু করা ‘আলোর ফেরিওয়ালা’ ভ্রাম্যমাণ ভ্যানের মাধ্যমে প্রতিদিন ১০টি বাড়িতে বিদ্যুত সংযোগ দেয়া হয়েছে।