menu

জলনিকাশি খাল দখল করে বহুতল ভবন

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, বাঁশখালী (চট্টগ্রাম)
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
image

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বৈলছড়ি ইউনিয়নের চেচুরিয়া গ্রামে প্রধান সড়কের পাশে বিল্ডিং কোড লঙ্ঘন করে সীমানা প্রাচীর ভেঙে বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় মো. মফিজ নামের এক ব্যক্তি জেলা পরিষদের পানি নিষ্কাশনের খাল ও অন্যের সীমানা প্রাচীর ভেঙে এই ভবন নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার ক্ষতিগ্রস্তদের পক্ষে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বৈলছড়ি ইউনিয়নের চেচুরিয়া গ্রামের মো. মফিজ নামের এক ব্যক্তি জেলা পরিষদের পানি নিষ্কাশনের খাল ও প্রধান সড়কের পাশে কিছু জায়গা ক্রয় করে। ক্রয়কৃত জায়গা সম্প্রতি বিল্ডিং কোড অমান্য করে ভবন নির্মাণ করে। অভিযোগ উঠেছে কোন প্রকৌশলীর নকশা ছাড়াই বিল্ডিংটি নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও পার্শ্ববর্তী রোকসানা বেগম নামে এক বিধবা মহিলার মালিকানাধীন জায়গার সীমানা প্রাচীর ভেঙে ওই ভবন নির্মাণ করা হয়। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হলে তারা সেই বাধা উপেক্ষা করে নির্মাণকাজ চালিয়ে যায়। এই নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিশি বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয় বেশ কয়েকবার। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার সকালে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ক্ষতিগ্রস্ত রোকসানা বেগম।

এ ব্যাপারে নির্মিতব্য ভবনের মালিক মো. মফিজের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ভবন নির্মাণের ফলে সীমানা প্রাচীরটির কিছু অংশে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় তা ভেঙে ফেলা হয়েছে। ওই সীমানা প্রাচীর আমি পুনরায় নির্মাণ করে দেব। জেলা পরিষদের পানি নিষ্কাশনের খাল দখল সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করেন।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অভিযোগ পাওয়ার পর বিষয়টি উপজেলা প্রকৌশলীকে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেছেন।