menu

কুড়িগ্রামে সবুজ চাদরে ঢাকা বোরোর মাঠ

সংবাদ :
  • হুমায়ুন কবির সূর্য্য, কুড়িগ্রাম
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ ২০২০
image

কুড়িগ্রাম : বোরো ফসলের মাঠে সবুজের সমারোহ -সংবাদ

কুড়িগ্রামে সবুজের চাদরে ভরে উঠেছে বোরো ফসলের মাঠ। এমন সবুজের সমারোহ দেখে চাষিদের চোখে মুখে হাসি ফুটে উঠলেও প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন তারা। নিয়মিত পরিচর্চা ও কীটনাশক প্রয়োগে বোরো ধানের গোছা বাড়তে থাকলেও আবহাওয়ার গতিবেগের ওপর নির্ভর করছে ফলনের ভবিষ্যত। তাই সর্বোচ্চ চেষ্টাই করছেন চাষিরা। এখন পর্যন্ত সবকিছু অনুকূলে রয়েছে। এ রকম অবস্থা থাকবে বলে আশা করছেন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তারা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, জেলায় এবার বোরো ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১ লাখ ১১ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে। আবাদ হয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার ১১০ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ হাজার ৯১০ হেক্টর জমিতে অধিক আবাদ করেছে কৃষকগণ। কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের কালিরহাট এলাকার কৃষক জিতেন, সুরেন ও অজয় জানান, এখন পর্যন্ত আবাদ আশানুরুপ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে কৃষকের খরচ সাশ্রয় হবে। অপরদিকে পাঁচগাছী ইউনিয়নের কাচিচরের কৃষক বিউটি, নুরল ও আবদার জানান, এ সময় অতি খরা ও কালবৈশাখীর কারণে অনেক সময় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এতে উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। এখন পর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাক আছে। আমরা সঠিকভাবে পরিচর্চা করছি। আশা করছি তেমন কোন ক্ষতি হবে না।

এদিকে উলিপুর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের গোড়াই গ্রামের কৃষক মোস্তা, জলিল, লিয়াকত ও নুরুজ্জামান জানান, বোরো ধানের ফলন এবার ভাল হওয়ার কথা কিন্তু ধান চাষিরা ধান বিক্রি করে খরচ তুলতে পারে না। এ বিষয়টা সরকারের ভেবে দেখা উচিত। যাতে প্রকৃত কৃষক উপকৃত হয়। টাউট-বাটপাররা যাতে কৃষকের রক্ত-ঘামে তোলা সোনালী ধানের সুফল ভোগ করতে না পারে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান জানান, কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের পাশে থেকে পরামর্শ দিচ্ছে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা। এবার বোরোর ফলন ভাল হয়েছে। আশা করছি আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে কৃষকরা ভাল ফলন ও ভাল দামও পাবে।