menu

অল্প খরচ স্বল্প সময়ে কুমড়ার বাম্পার ফলন

সংবাদ :
  • রাম প্রসাদ সরকার দীপু, ঘিওর (মানিকগঞ্জ)
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৭ মে ২০১৮
image

ঘিওর (মানিকগঞ্জ) : মিষ্টি কুমড়া হাতে হাস্যোজ্জ্বল কৃষক -সংবাদ

মিষ্টি কুমড়া চাষ করে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকরা আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। ফলে এখানে দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় দুই শতাধিক চাষি অন্যান্য ফসলের সঙ্গে মিষ্টি কুমড়া চাষ করে সংসারে এনেছেন সচ্ছলতা। অল্প সময়, স্বল্প খরচ আর ভালো ফলনে ওই অঞ্চলের কৃষকের চোখে মুখে দেখা দিয়েছে হাসির ঝিলিক। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে ঘিওরে প্রায় সাড়ে ৪ শত হেক্টর জমিতে মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়েছে। এছাড়া কৃষকরা শীতকালে ফুলকপি ও বাঁধাকপির চাষ করেও সফল হয়েছে। একই জমিতেই মাসের মাঝামাঝি সময়ে মিষ্টি কুমড়ার বীজ বপন করে। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত মিষ্টি কুমড়ার ফলন পাওয়া যায়। অন্যান্য ফসলের সঙ্গে কুমড়া আবাদ করায় এতে কৃষকদের আলাদা কোন খরচ করতে হয় না।

সরজমিন দেখা গেছে, জেলার প্রতিটি উপজেলাতেই কমবেশি মিষ্টি কুমড়ার চাষ হয়ে থাকে। তবে ঘিওর উপজেলার বালিয়াখোড়া, চঙ্গশিমুলিয়া, মাইলাগি, বড়বিলা, নালী, বাঙ্গালা, বালিয়াখোড়া, বরুরিয়া, পয়লা, কুইষ্টা গ্রামে উল্লেখযোগ্য হারে কুমড়ার আবাদ হয়। এখানকার উৎপাদিত মিষ্টি কুমড়া মানিকগঞ্জ কাঁচা বাজার আড়ত, আশুলিয়ার বাইপাইল সবজি আড়ত ও রাজধানীর কাওরান বাজারে পাইকারি দরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। চলতি বছর ৯০ শতাংশ জমিতে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ করেছেন উপজেলার বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের পুরাণ গ্রামের কৃষক মইজুদ্দিন মিয়া। তিনি জানান, কুমড়া চাষে জমিতে বিঘাপ্রতি খরচ প্রায় ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। আর প্রতি বিঘাতে কুমড়া বিক্রি করে লাভ হয় ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। পয়লা গ্রামের কৃষক হেলাল উদ্দিন জানান, এক বিঘা জমি থেকে সর্বোচ্চ ১১শ’ থেকে ১২শ’ কুমড়া পাওয়া যায়। প্রতিটি কুমড়ার দাম আকার ভেদে ১০ টাকা থেকে ৪০ টাকা দরে ক্ষেত থেকেই পাইকারি ব্যবসায়ীরা কুমড়া কিনে নিয়ে যায়। তাই আমাদের বাড়তি কোনো ঝামেলা পোহাতে হয় না। পাইকারি ক্রেতা মজনু বিশ্বাস জানান, অন্যান্য এলাকার চেয়ে এখানকার উৎপাদিত মিষ্টি কুমড়া সুস্বাদু ও আকৃতিতে বড় হয় বলে চাহিদা বেশি। এ বছর তিনি ৩ লক্ষ টাকার মিষ্টি কুমড়া পাইকারি ক্রয় করেছেন। লক্ষাধিক টাকার ওপরে লাভের আশা করছেন তিনি। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ আশরাফ উজ্জামান জানান, কৃষকরা ফুলকপি, আলু, আখ চাষের সঙ্গে মিষ্টি কুমড়ার চাষ করছে। কম খরচে ভালো লাভ পাচ্ছেন। তাই দিন দিন এখানকার কৃষকরা মিষ্টি কুমড়া আবাদে ঝুঁকে পড়ছেন। এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর কৃষকদের সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে আসছে।