menu

পতনের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে শেয়ারবাজার

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১০ অক্টোবর ২০১৯
image

দেশের শেয়ারবাজার কোনভাবেও যেন পতনের বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না। একদিন সূচকের কিছুটা উন্নতি হলে পরের দিনই তার চেয়ে বেশি অবনতি হচ্ছে। এভাবে ধারাবাহিক পতনের মধ্যেই রয়েছে শেয়াবাজার। সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস গত রোববারের লেনদেন পতনে শেষ হয়েছে, এরপর সোমবারও পতন হয়েছে। গতকালও পতনে শেষ হয়েছে শেয়ারবাজারের লেনদেন। এদিন উভয় শেয়ারবাজারের সব সূচক কমেছে। একইসঙ্গে কমেছে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর। তবে টাকার পরিমাণে লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই ও সিএস) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৩২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৬২ পয়েন্টে। ডিএসইতে অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৮ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ১৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১১২৪ ও ১৭২৫ পয়েন্টে। ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৫২টি কোম্পানির মধ্যে ৬৮টি বা ১৯ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। অন্যদিকে দাম কমেছে ২৪১টির বা ৬৯ শতাংশ কোম্পানির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৩টি বা ১২ শতাংশ কোম্পানির। এদিন ডিএসইতে ৩২০ কোটি ৯১ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবস থেকে ১৮ কোটি ৯২ লাখ টাকা বেশি। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩০১ কোটি ৯৯ লাখ টাকার। টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ন্যাশনাল টিউবসের শেয়ার। এদিন কোম্পানির ২৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসা স্কয়ার ফার্মার ২০ কোটি ৭২ লাখ টাকার এবং ২০ কোটি ৪১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে উঠে আসে সামিট পাওয়ার। লেনদেনে এরপর রয়েছে- স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, মুন্নু জুট স্টফলার্স, সিলকো ফার্মা, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, ওয়াটা কেমিক্যাল, স্টাইলক্রাফট এবং গ্রামীণফোন। অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৮৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৭৯৮ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৫১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৫৭টির, কমেছে ১৫৪টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪০টির দর। আজ সিএসইতে ১৬ কোটি ৩৭ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

অধিকাংশ ব্যাংকের শেয়ারে ধস : ব্যাংক দেশের অন্যতম আর্থিক খাত। গতকাল এ খাতেও পতন হয়েছে। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনে অংশ নেয়া ব্যাংক খাতের বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে।

জানা গেছে, এদিন ৩০টি ব্যাংক লেনদেনে অংশ নেয়। ব্যাংকগুলোর মধ্যে ৬টির বা ২০ শতাংশের শেয়ার দর বেড়েছে। শেয়ার দর কমেছে ১৬টির বা ৫৩ শতাংশের এবং শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে ৮টির বা ২৭ শতাংশ ব্যাংকের। শেয়ার দর সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ১ টাকা করে কমেছে রূপালী ও মিউট্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ০.৭০ টাকা ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ০.৪০ টাকা কমেছে উত্তরা ব্যাংকের। এছাড়া স্ট্যান্ডার্ড, শাহজালাল, প্রাইম, ইসলামী ও ইস্টার্ন ব্যাংকের ০.২০ টাকা করে এবং ব্যাংক এশিয়া, ঢাকা, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী, যমুনা, মার্কেন্টাইল, প্রিমিয়ার ও সাউথইস্ট ব্যাংকের শেয়ার দর ০.১০ টাকা করে কমেছে। শেয়ার দর সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ০.৮০ টাকা বেড়েছে ট্রাস্ট ব্যাংকের। এছাড়া পূবালী ও ব্র্যাক ব্যাংকের ০.৪০ টাকা করে এবং এবি, এনসিসি ও ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের শেয়ার দর ০.১০ টাকা করে বেড়েছে।

গতকাল লেনদেন শেষে শেয়ার ৮টি ব্যাংকের শেয়ার দর অপরিবর্তিত রয়েছে। ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে : স্যোসাল ইসলামী, ওয়ান, ন্যাশনাল, আইএফআইসি, আইসিবি ইসলামিক, এক্সিম, সিটি ও আল আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক।