menu

খেলাপি ঋণ দ্রুত অবলোপনের সুযোগ চায় ব্যাংকগুলো

    সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক
  • ঢাকা , শনিবার, ০৯ নভেম্বর ২০১৯

নানা পদক্ষেপ হাতে নেয়ার পরও খেলাপী ঋণ না কমলে দ্রুত অবলোপনের (রাইট অফ) মাধ্যমে কাগজে কলমে খেলাপি ঋণ কমাতে চাচ্ছে ব্যাংকগুলো। গভর্নরের কাছে এমনই প্রস্তাব দিয়েছে দেশের তফসিলি ব্যাংকগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহীরা। সম্প্রতি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সঙ্গে বৈঠক করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বৈঠক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্বে করেন গভর্নর ফজলে কবির। এ ছাড়া ডেপুটি গভর্নর মনিরুজ্জামান, ব্যাংকিং রিচার্জ উপদেষ্টা এসকে সুর চৌধুরী এবং এবিবির চেয়ারম্যান ও ঢাকা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সৈয়দ মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে সংগঠনটির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে তিন বছরের মন্দ মানের খেলাপি ঋণ স্থিতিপত্র থেকে বাদ দিতে অবলোপন করার সুযোগ রয়েছে। এটি দেড় বছর করার দাবি করেছেন এমডিরা। তবে শর্ত সাপেক্ষে বিষয়টি বিবেচনা করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ ছাড়া বৈঠকে অফশোর ব্যাংকিং নীতিমালা সংশোধন, ইন্টারন্যাল ক্রেটিড রিস্ক রেটিং (আইসিআরআর) গাইডল্যাইন্স সংশোধন এবং পরিবর্তনের জন্য তাদের দাবি তোলা হয়।

এ ছাড়া গৃহঋণের সীমা বাড়ানো এবং ঋণ খেলাপি ও প্রভিশনিং নীতিমালা পরিবর্তনের বিষয়ে প্রস্তাব দেয়া হয়। এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের জুন মাস শেষে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১ লাখ ১২ হাজার ৪২৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে কুঋণের পরিমাণ ৯৭ হাজার ৯৩৭ কোটি টাকা। যে কোন সময় অবলোপনের সুযোগ পেলে কুঋণের পুরো অর্থ হিসাব থেকে বাদ দিতে পারবে ব্যাংকগুলো। অর্থাৎ নীতিমালা কার্যকর হলে খেলাপি ঋণ দাঁড়াতে পারে মাত্র ১৪ হাজার ৬৮৮ কোটি টাকা। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে অবলোপন নীতিমালা শিথিল করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ৫ বছরের পরিবর্তে ৩ বছরের অনাদায়ী খেলাপি ঋণ হিসাব থেকে বাদ দিতে পারছে ব্যাংকগুলো। আগে মামলা ছাড়া ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত অবলোকন করতে পারতো। কিন্তু এখন দুই লাখ টাকা পর্যন্ত খেলাপি ঋণ মামলা ছাড়াই অবলোপন করতে পারছে তারা।

গত এক বছরের ব্যবধানে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২২ হাজার কোটি টাকা। চলতি বছরের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১০ হাজার ৮৭৩ কোটি টাকা যা মোট ঋণের ১১ দশমিক ৮৭ শতাংশ। ২০১৮ সালের একই সময়ে খেলাপি ঋণ ছিল ৮৮ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা যা ছিল ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ। আগের কোন এক বছরে এতো বেশি খেলাপি ঋণ বাড়েনি। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন বলা হয়েছে, মার্চ শেষে সবগুলো ব্যাংকের মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ৩৩ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা। আর রাইট অফ (অবলোপন) করা ঋণ খেলাপি ঋণের সঙ্গে যোগ করলে যা দেড় লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব বলছে, মোট খেলাপি ঋণের অর্ধেকই রাষ্ট্রায়ত্ত ৬ বাণিজ্যিক ব্যাংকের। মার্চ শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৫৩ হাজার ৮৭৯ কোটি টাকা।

এ সময় রাষ্ট্রীয় মালিকানার ব্যাংকগুলো ঋণ বিতরণ করেছে এক লাখ ৬৭ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। বিশেষায়িত দুই ব্যাংকের মার্চ শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা যা মোট ঋণের ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ। এ সময় তাদের মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৬০২ কোটি টাকা। অন্যদিকে, খেলাপি ঋণ বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকগুলোতেও। মার্চ শেষে ৪০টি বেসরকারি ব্যাংকের মোট ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৫ হাজার ৪৩০ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ ৪৯ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা। আর দেশে পরিচালিত ৯টি বিদেশি মালিকানার ব্যাংকে চলতি বছরের মার্চ শেষে মোট ৩৬ হাজার ৩৯১ কোটি টাকা বিতরণ করে। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২৫৬ কোটি টাকা যা বিতরণ হওয়া ঋণের ৬ দশমিক ২০ শতাংশ।