menu

এ সংখ্যার কবিতা

  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০১৯
image

পতনের গোপন পয়ার

শ্বেতা শতাব্দী এষ

ঘুরেফিরে যদি সেই প্রেমের কথাই বলি-

তবে বলতে হবে বিগত সন্ধ্যায়

যে সূর্য ডুবে ছিল তা আজ পুরনো হয়ে গেছে।

পুরনো ভালোবাসার শরীরে তখন রক্তশূন্য জবা-

কাম্য দূরত্বের ভাষা শিখে গেছে শালিক।

চারপাশে তাই সুখি ছায়াদের চলাচল-

তোমার এইসব ভালোলাগে,

তুমি দৃষ্টি নিবদ্ধ করে রাখো

পতনের গোপন পয়ারে।

তারাখেলা

হাবিবুল্লাহ রাসেল

বাবা যখন রোদে দাঁড়িয়ে কথা বলতেন- বাবার ছায়ার মধ্যে একটি পথ খুঁজে নিতাম। রাতে আমরা তারা দেখতাম। বাবার ছায়া তখন দেখা যেতো না। বাবা দেখাতেন ছায়াপথ। বলতেন, আয় তারা খেলি। আমি বলতাম, তারা খেলা যায় নাকি! বাবা বলতেন, যায় যায়, তুই এ দিকটা গোন, আমি ওই দিকটা।

বাবা লেখা-পড়া জানতেন না। দীর্ঘ প্রচেষ্টায় স্বাক্ষর করতে পারতেন শুধু। তবু বাবা দেখাতেন ছায়াপথ। অন্ধকারেও আমি বাবার ছায়া খুঁজতাম।

তারপর রোদেও আর বাবার ছায়াটা পাওয়া গেলো না। বাবাকে রেখে আসলাম নিরন্তর অন্ধকারে।

রোজ রাতে আকাশে তাকাই, তারা দেখি- বাবার ছায়াটা যদি দেখা যায়! বাবা একদিন ছায়াপথ দিয়ে তাকালেন, ডাকলেন- বাবু। বললাম- জ্বি বাবা। বাবা বললেন- তারা নিবি? আমি বললাম- তারা! কী করবো তারা দিয়ে? বাবা বললেন- খেলবি। আমি বললাম- তারা খেলা যায় নাকি? তাও একা একা? বাবা বললেন- একা একাই তারা খেলতে হয়।

আমি তাকিয়ে দেখি এক আকাশ বর্ণমালা...

জন্মান্ধ প্রেম-৩৩

শুক্লা পঞ্চমী

বোধের জায়গাগুলোতে আমি অপরিণত

জন্মান্ধ প্রেমে ঈশ্বরের সাথে আমার এটাই পার্থক্য

চোখ দিয়ে সবাই যখন দেখে

মন নিয়ে আমি তখন খুঁজি

ভ্রান্ত পথিক।

যেখানে আমাদের দেখা

হাসান হাবিব

এইসব বাগানে সাজাবো না; ভালোবাসা থেকে নেমে যাক ঘরদোরের ইচ্ছা

যে দেখা ‘আমাকে ছাড়া এক মুহূর্ত কি চলবে তোমার’ উদ্যানের সেই কথা

পুরোনো রাজবাড়ির পলেস্তারায়

হারানোর অপেক্ষা।

তুমি গঙ্গা অথবা সাধ্যির করতালি নিয়ে হও কুহেলিকার ঘাট

তবু শীতের মত জড়িয়ে থাকা বাঙলা কী হবে না!

বেগুন ফুলের ঘ্রাণ

সুমন রায়হান

হৃদয়ে ধরে না কারসাজি বেগুন ফুলের ঘ্রাণ...

দূর হতে ধরে রাখি টান,

ভিনদেশি গোলাপ ফুটে আছে নবমী চাঁদ।

একটু একটু করে কাছে এলে, রাত ফুরিয়ে ভোর...

রাতের রোদ্দুরে পোড়ে না হৃদয়!

অতিশয় তেজোদীপ্ত ভোরের সূর্য,

কার কোলে কে রাখে বুক, সুখ কেবলই মায়া।

ভুলে গেলে মুছে যায় রাতের তারা, বেদনারা দিশেহারা...

সুপ্ত স্বপ্নের সলতেতে বারুদের তীব্র গন্ধ...

ভালোবাসার ছোঁয়া পেলেই

কেবল দাউ করে জ্বলে উঠতে পারে মধ্যরাত...

তরুণ কবির প্রতি

তারেক আহসান

তরুণ কবিকে সবিনয় জিজ্ঞাসা : ফুটেছ কোন্ বনে?

সন্ধ্যামালতী নাকি জারুলে?

মেতেছ কী কারণে? জীবনমন্থন বিষ কেন করেছ পান?

সর্বনাশের নেশায়? তীর্থের কাক হয়ে অপেক্ষা কর

ঐশী বাণীর আশায়? নাকি-

বোশেখ ফুরালেই যাবে চলে, ভূষণ্ডীর কাক?

অতীত পতিত নাকি জ্যান্ত, হৃদয়ে মুদ্রিত?

আত্মতত্ত্বে বিত্তশালী- প্রচারপটু?

চর্চা চলবে কীভাবে- বালখিল্যতায় নাকি পরচর্চায়?

শব্দের রাখাল?

বিশদে কী আবাদ করো- দেহতত্ত্ব না কাব্যতত্ত্ব?

কোন্ দলের সমর্থক?

তত্ত্ব কপচানো কাব্যবিশারদ নাকি ছন্দবিশারদ?

মুখ্যত-

মায়ের আঁচল ছাড়ার বয়স হয়েছে?

এখনই-যে কবিতাবৌয়ের কাঁচুলি খোলার সাহস দেখাও!