menu

বিশ্বসাহিত্যের সাম্প্রতিক প্রবণতা

ইকোক্রিটিসিজম ও ইকোফিকশন

মাহফুজ আল-হোসেন

  • ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯
image

কেটি ইয়োকোম

ইকোলজি বিষয়টি মানুষের পরিবেশ সচেতনতার মধ্য দিয়ে একটি শাস্ত্রে রূপান্তরিত হয়েছে ঊনবিংশ শতাব্দির শেষভাগে। জার্মান প্রাণিবিজ্ঞানী আর্নস্ট হেকেল ১৮৬৬ সালে বিজ্ঞান চর্চার শাখা হিসেবে ইকোলজিকে সামনে নিয়ে আসেন। তিনি জৈব-অজৈব পরিবেশের সাথে প্রাণিজগতের সম্পর্ক নিয়ে বিশদ আলোচনা করেনÑ যা বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হয়। বর্তমানকালেও পরিবেশের বিষয়টি বৈশ্বিক পরিমন্ডলে মানবসমাজে উদ্বেগের বিষয়বস্তু হিসেবে ব্যাপকভাবে আলোচিত হচ্ছে। বিংশ শতাব্দির সত্তরের দশক থেকেই বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলন ও সভাতে মানবসভ্যতার ক্রমবিকাশের ধারায় প্রাকৃতিক পরিবেশ যেভাবে বিপর্যস্ত হচ্ছে তা নিয়ে নানামুখি চিন্তা-ভাবনা, উদ্বেগ ও উদ্যোগের বিষয়টি দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। যদিও এর বেশকিছুকাল আগে ১৯৬২ সালে র‌্যাচেল কারসন তাঁর অসাধারণ লেখনি ‘সাইলেন্ট স্প্রিং’-এ ডিডিটি’র মতো বিষাক্ত কীটনাশকের ব্যবহারের ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতির বিষয়টি জনসমক্ষে তুলে ধরেন- যা বিশ্বব্যাপী সবার মনে ভীষণ দাগ কাটে। জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৯৭২ সালে স্টকহোমে এবং ঠিক তার ২০ বছর পরে ১৯৯২-তে রিওডি জেনিরোতে পরিবেশ বিষয়ক দুটি বিশ্ব সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী বিশ্ব-নেতৃত্ব মানবজাতির অস্তিত্ব রক্ষায় পরিবেশ সংরক্ষণের বিষয়টি গ্লোবাল এজেন্ডা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার প্রয়াস পেয়েছিলেন এবং সে ধারা বৃহত্তর জনসমাজ এবং পরিবেশবাদী মানুষ ও সিভিল সোসাইটি সংগঠনের আন্দোলন ও ক্যাম্পেইনের ফলে ক্রমশ বেগবান হচ্ছে। বিংশ শতাব্দির সত্তরের দশকের প্রথমদিকে প্রকৃতি ও পরিবেশ সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ যখন ছড়িয়ে পড়তে শুরু করল ঠিক সেসময়ে ওয়েস্টার্ন লিটারেচার এসোসিয়েশন (ডখঅ) তত্ত্বগতভাবে ‘ইকোক্রিটিসিজম’-এর ধারণা সাহিত্যরসিকদের সম্মুখে নিয়ে আসেন। ১৯৭৮ সালে উইলিয়াম রিউকার্ট তাঁর বিখ্যাত আর্টিকেল ‘লিটারেচার এন্ড ইকোলজি অ্যান এক্সপেরিমেন্ট ইন ইকোক্রিটিসিজম’-এ ইকোক্রিটিসিজম শব্দটি সর্বপ্রথম ব্যবহার করেন। যদিও কার্স ক্রোয়েবার ১৯৭৪ সালে ইকোক্রিটিসিজমের কাছাকাছি ‘ইকোলজিক্যাল’ শব্দটি ব্যবহার করেছিলেন তাঁর একটি প্রবন্ধে। কিন্তু একাডেমিক ডিসকোর্স হিসেবে রিউকার্ট এবং ক্রোয়েবারের উল্লিখিত শব্দ দুটির প্রয়োগ বোদ্ধা মহলে সেভাবে সাড়া ফেলতে পারেনি। অবশ্য ১৯৮৯ সালে ডব্লিউ এলএ-র সম্মেলনের অব্যবহিত পরে ইকোক্রিটিসিজম সাহিত্য সমালোচনার একটি প্রকরণ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এজন্য যাঁর নামটি সর্বাগ্রে সামনে আসে তিনি হলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কর্নেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সেসময়ে অধ্যয়নরত গবেষক শেরিল গ্লটফেল্টি। উক্ত সম্মেলনে তাঁর পঠিত গবেষণা প্রবন্ধের মাধ্যমে ইকোক্রিটিসিজম শব্দটির পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেই তিনি ক্ষান্ত হননি, ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘এসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব লিটারেচার এন্ড এনভায়রনমেন্ট (ASLE)’ এবং উক্ত সমিতির জার্নাল ISLE-এর যুগ্ম প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে তিনি সাহিত্য সমালোচনার নতুন ধারারূপে ইকোক্রিটিসিজমকে জনপ্রিয় করে তোলেন।

‘ইকোক্রিটিসিজম’-এর সুনির্দিষ্ট সংজ্ঞা নিরূপণ করা বেশ দুরূহ। কারণ এ নিয়ে ইকোক্রিটিকদের মধ্যে মতদ্বৈধতা বিরাজমান। তবে সাধারণ বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে বলা যেতে পারে এটি হচ্ছে সাহিত্য সমালোচনার এমন একটি পদ্ধতি- যা সাহিত্য ও ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য প্রকৃতির মধ্যে যে সম্পর্ক তা বিশ্লেষণাত্মকভাবে উপস্থাপন করে। ইকোক্রিটিকগণ মনে করেন প্রকৃতির একটা বাস্তব অস্তিত্ব রয়েছে, এটি কবি-সাহিত্যিকদের কল্পনা জগতের কোন বিষয়বস্তু কিংবা বাক্নির্ভর কোন রোমান্টিক ধারণা নয়। বর্তমানে ইকোক্রিটিসিজমকে একটি বহুশাস্ত্রীয় (Multi-disciplinary) প্লাটফর্মের ওপর দাঁড় করানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। সাহিত্যের পাশাপাশি প্রকৃতিবিজ্ঞান, সমাজতত্ত্ব, পরিবেশবিদ্যা, নীতিশাস্ত্র, সাংস্কৃতিক নৃ-তত্ত্বসহ নানাবিধ দৃষ্টিকোণ এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সনাতনী মানবকেন্দ্রিক (অ্যানথ্রোপোসেন্ট্রিক) দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবেশকে সাহিত্যে রূপায়নের তীব্র বিরোধিতা করে আসছে ইকোক্রিটিকগণ এবং তার ফলে হাল আমলে কথাসাহিত্য ও কবিতায় ইকোসেন্ট্রিক রচনাবলি ক্রমবিকশিত হচ্ছে।

মাইকেল পি কোহেন-এর ভাষায় : ‘তুমি যদি ইকোক্রিটিক হতে চাও, তুমি কী কর এবং সেসবের জন্য সমালোচিত হতে তোমাকে প্রস্তুত থাকতে হবে’ এবং কোহেন আরও মনে করেন- ‘স্তুতিগান স্কুল (Praise-song School)’ এর সাহিত্য সমালোচনা ইকোক্রিটিসিজম-এর পথে প্রতিবন্ধকতাস্বরূপ। জলবায়ু পরিবর্তন ও বৈশ্বিক উষ্ণায়ন নিয়ে বিবদমান পরিস্থিতিতে বর্তমানে পরিবেশগত ন্যায়বিচার (Environmental Justice)-এর ভিত্তিতে ইকোক্রিটিসিজম-এর পুনঃসংজ্ঞায়নের দাবি ক্রমশ জোরালো হচ্ছে একাডেমিক অঙ্গনে।

বর্তমান বিশ্বসাহিত্যে ইকোফিকশন কথাসাহিত্যের জনপ্রিয়তম ধারাসমূহের একটি। এটি সাহিত্যের সেই শাখা যেখানে প্রকৃতিমুখি (Nature oriented) এবং পরিবেশমুখি (environment-oriented) কাল্পনিক কিংবা বাস্তবধর্মী আখ্যান উপস্থাপিত হয়। এটাকে অনেক সময় সবুজ আখ্যানও বলা হয়ে থাকে। ইকোফিকশনের মধ্যে ইকোনভেল-ই বর্তমানে বিশ্বে অন্যতম নন্দিত কথাসাহিত্য। জিম ডোয়্যার এর মতে, ইকোফিকশন-এ মানুষের সাথে বাহ্যিক পরিবেশের সম্পর্ক বিবৃত হয়। আখ্যানভাগে সেটা বাস্তব কিংবা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর প্লটেও পরিবেশিত হতে পারে। এই প্রকরণের কথাসাহিত্যে প্রচলিত ধারার কাহিনী, ওয়েস্টার্ন, রহস্য, রোমান্স, ফ্যান্টাসি ইত্যাদি পরিবেশ বাস্তবতার সংমিশ্রণে বিবৃত হতে পারে এবং শৈলী হিসেবে আধুনিকতা, উত্তরাধুনিকতা, বাস্তববাদ, জাদু-বাস্তবতা ব্যবহৃত হতে পারে (উরসুলা কে লে গুইন-এর রচনাবলি এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ)। তবে, ইকোফিকশনে পরিবেশের কাছে মানব জাতির জবাবদিহিতা নৈতিকতার দীক্ষা হিসেবে এবং পরিবেশের যতদূর সম্ভব বাস্তবসম্মত ধারণা পরোক্ষভাবে প্রক্রিয়া হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। ডোয়্যার বর্ণিত ইকোফিকশন এর উপযুক্ত বৈশিষ্ট্যসমূহ লরেন্স বুয়েলস-এর পরিবেশকেন্দ্রিক নন-ফিকশন সম্পর্কিত ধারণার সাথেও অনেকখানি মিল রয়েছে।

মাইক ভ্যাসির মতে, ইকোফিকশনে কাল্পনিক পটভূমিতে কাহিনির বুনন থাকলেও সেখানে যেন প্রাকৃতিক ইকোসিস্টেমের আবহ অনুভূত হয়। গল্প নিজেই পাঠককে প্রকৃতির রাজ্যে সশরীরে টেনে নিয়ে যাবে- যাতে ঘটনাপ্রবাহ জীবন্ত ও বাস্তব মনে হয়। প্রিয় পাঠকদের প্রতি বিনীত অনুরোধ রইলো ড্রাগনফ্লাই (http://dragonfly.eco) নামের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করতে, যেখান থেকে বিশ্বের সাম্প্রতিকতম ইকোফিকশন এবং এর লেখকদের ও লেখার বিষয়বস্তু সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে পারবেন। এর পাশাপাশি পাঠকদের আরও অনুরোধ রইলো LiteraryHub Ges Goodreads-এর ওয়েবসাইট দুটোও ভিজিট করতে; কারণ, সেখানে আপনি পেয়ে যাবেন সারাবিশ্বের সাড়া জাগানো ইকোফিকশনসমূহের খবর।

এ লেখাটি শেষ করবো সুন্দরবনের বিশ্বখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার-এর বিলুপ্তির অসাধারণ আখ্যান নিয়ে রচিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যানসাসে জন্মগ্রহণকারী লেখক কেটি ইয়োকোম-এর ইকোনোভেল “থ্রি ওয়েস টু ডিসঅ্যাপিয়ার”-এর সংবাদ দিয়ে। বইটি ২০১৬ সালের “সিস্কিইউ প্রাইজ ফর নিউ এনভায়রনমেন্টাল লিটারেচার” পুরস্কার লাভ করে। সিস্কিইউ পুরস্কার প্রদান কমিটির বিচারকম-লীর সম্মানিত সদস্য জোঅ্যান হার্ট বইটি সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন : ‘থ্রি ওয়েস টু ডিসঅ্যাপিয়ার’ উপন্যাসটি বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতি রয়েল বেঙ্গল টাইগার-এর ওপর আলোকসম্পাত করে শুরু হলেও এর ক্ষেত্র সম্প্রসারিত হয়ে প্রতিটি পাতায় উঠে এসেছে প্রকৃতির রাজ্যে প্রত্যেকের সাথে প্রত্যেকের আন্তঃনির্ভরশীলতা এবং সকল প্রাণের ভঙ্গুরতার কাহিনি। গল্পবয়নের বিবর্ণ তন্তুতে রয়েছে বাস্তুতান্ত্রিক ভারসাম্য (বপড়ষড়মরপধষ নধষধহপব) এবং উচ্চাভিলাষী ও মর্মস্পর্শী এ উপন্যাসটিতে সম্পদের দুষ্প্রাপ্যতা, জলবায়ু পরিবর্তন, পারিবারিক সম্পর্কের গতি-প্রকৃতি, সাংস্কৃতিক সংঘাত, মানবজাতির জবাবদিহিতা, নারীর অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এবং সর্বোপরি ভালবাসার কথা উচ্চারিত হয়েছে আশ্চর্যকুশল ফর্ম ব্যবহার করে।’

সবুজ শ্যামলিমায় ঘেরা বাংলাদেশের প্রাকৃতিক পরিবেশ থেকে প্রণোদিত হয়ে এদেশের কবি-সাহিত্যিক ও সাহিত্য সমালোচকগণ ইকোক্রিটিসিজম ও ইকোফিকশন রচনার মধ্য দিয়ে বাংলা সাহিত্যকে বিশ্বের দরবারে প্রতিষ্ঠিত করবেন, এ আশাবাদ ব্যক্ত করছি।

ইমেইল : mahfuzalhossain.bd2018@gmail.com

তথ্যসূত্র :

১। ওয়েবসাইট : Wikipedia, Dragonfly, Goodreads, LiteraryHub

2| Buell Lawrence, The Environmental Imagination : Thoreau Nature Writing and the Formation of American Culture, Harvard University Press, 1995.

3| Cohen Michael P, Blues in Green: Ecocriticism Under Critique, Environmental History 9.1, January 2004

4| Glotfelty, Cheryll and Harold Fromm (Eds). The Ecocriticism Reader : Landmarks in Literary Ecology. Athens and London, University of Georgia, 1996.

5| Rueckert, William, Literature and Ecology : An Experiment in Ecocriticism, Iowa Review 9.1 (1978)

  • নজরুলের ‘বিদ্রোহী’

    মঈনউদ্দিন মুনশী

    newsimage

    ‘বিদ্রোহী’ নজরুল ইসলামের অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবিতা। ‘বিদ্রোহী’ যখন প্রথম প্রকাশিত হয়, তখন

  • হেনরি জেমস

    দুঃসাধ্যের স্থপতি

    কামরুল ইসলাম

    newsimage

    আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী ব্রিটিশ ঔপন্যাসিক হেনরি জেমস (১৮৪৩-১৯১৬) তাঁর বেশ কিছু লেখার মধ্য

  • ওসামা অ্যালোমারের অণুগল্প

    অনুবাদ: ফজল হাসান

    newsimage

    লাথি দু’জন প্রশ্নকর্তা কয়েদীকে কক্ষের এক কোণে জবুথবু অবস্থায় ফেলে যায়। কয়েদীর ক্ষত

  • স্লোভেনিয়ান কবি গ্লোরিয়ানা ভিবারের সাক্ষাৎকার

    ‘বাংলাদেশ আমাকে গোলাপের কথা মনে করিয়ে দেয়’

    newsimage

    সম্প্রতি একুশে বইমেলায় মার্কিন প্রবাসী বাংলাদেশী কবি ও অনুবাদক রাজিয়া সুলতানার সঙ্গে

  • আমার আছে বই ৮

    মালেকা পারভীন

    newsimage

    গতবার ইরানি কুর্দিশ লেখক বেহরুজ বুচানি সম্পর্কে লিখেছিলাম। অনেকেই বুচানি বা তাঁর

  • অসম্পূর্ণ গল্প (পর্ব ৪)

    মুজতাবা শফিক

    newsimage

    (পূর্ব প্রকাশের পর) সপ্তম অধ্যয় মুমিনের ক্লাস ফাইভের বৃত্তি পরীক্ষার সময়, আব্দুল হক সাহেব

  • নির্মম যম

    অনুবাদ : শামসুজ্জামান হীরা

    newsimage

    আমি এক দন্ডপ্রাপ্ত ভবঘুরে আত্মা। এক অস্থির আত্মা। এখানে সেখানে অনবরত ঘুরে

  • কামরুল হাসানের কবিতা

    newsimage

    উনিশ বছর একটি পাখির আর কতটুকু বয়স? উনিশ বছর অনাঘ্রাত রোম নিয়ে বসন্তের বাগানে

  • পথচারী

    রে ব্র্যাডবেরি

    newsimage

    নভেম্বরের রাত আটটায় কুয়াশা ঢাকা শহরের নীরবতায় ডুব দেওয়া, কংক্রিটে মোড়া ফুটপাথে

  • চয়ন শায়েরীর কবিতা

    newsimage

    স্কিজোফ্রেনিয়া : দুই একটা হাত হ্যাঁচকা টানে মগজ বের করে আনে গাছ গজিয়ে ওঠে

  • এ সংখ্যার কবিতা

    হৃদযন্ত্র নভেরা হোসেন তোমার ঘরের পাশেই আরেকটি ঘর তার পাশে আরেকটি তার